ভাড়া দিতে না পারায় ভাড়াটিয়াকে হত্যা, আটক ৩

অনলাইন ডেস্ক

ভাড়া দিতে না পারায় ভাড়াটিয়াকে হত্যা, আটক ৩

নারায়ণগঞ্জে বাড়ি ভাড়াকে কেন্দ্র করে ভাড়াটিয়াকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে এক বাড়ির মালিকের বিরুদ্ধে। শুক্রবার (২৩ অক্টোবর) সকালে নারায়ণগঞ্জ উপজেলার পুরাণ বন্দর চৌধুরী বাড়িস্থ প্রধানবাড়ি এলাকায় এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটে।

নিহত ভাড়াটিয়ার নাম মো. ফয়েজ (৪০)। ফয়েজ মুন্সিগঞ্জ জেলার গজারিয়া থানাধীন চরবলাকী গ্রামের আবুল মিয়ার ছেলে।


আরও পড়ুন: বাড়িতে ঢুকে দুই শিশুকে চাপা দিল পিকআপ


স্থানীয়রা জানান, বন্দর চৌধুরী বাড়িস্থ প্রধান বাড়ি এলাকার উম্মে কুলসুমের বাড়িতে বাসা ভাড়া নিয়ে ফয়েজ তার স্ত্রী, সন্তান নিয়ে বসবাস করছিলেন। করোনা মহামারিকালে কোথাও তেমন কাজ করতে না পারায় কর্মহীন হয়ে পড়েন ফয়েজ। ফলে বাড়ি ভাড়া ঠিকমতো পরিশোধ করতে না পারতেন না। 

কয়েক মাসের ভাড়া বকেয়া থাকে। এই বকেয়া বাড়ি ভাড়া দ্রুত পরিশোধ করতে বৃহস্পতিবার (২২ অক্টোবর) রাতে বাড়ির মালিক উম্মে কুলসুম ভাড়াটিয়া মো. ফয়েজ ও তার স্ত্রী রোজিনা বেগমকে চাপ দেন। এক পর্যায়ে তাদের মধ্যে বাকবিতণ্ডা হয়।

এ ঘটনার জের ধরে শুক্রবার সকাল এগারোটার সময় বাড়ির মালিক উম্মে কুলসুম ও অপর ভাড়াটিয়া মহিউদ্দিনসহ তার স্ত্রী শিরিনা মিলে বকেয়া ভাড়া পরিশোধ করতে না পারলে এখনই বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দিবে বলে মো. ফয়েজ ও তার স্ত্রী রোজিনাকে গালমন্দ করে হুমকি দেন। 

এ সময় উভয়ের মধ্যে ধাক্কাধাক্কিও হয়। এক পর্যায়ে বাড়ির মালিক উম্মে কুলসুম ও তার সহযোগী ভাড়াটিয়া মহিউদ্দিন, তার স্ত্রী শিরিনা মিলে ফয়েজকে পিটিয়ে আহত করেন। এ অবস্থায় আহত ফয়েজ মাটিতে পড়ে গিয়ে জ্ঞান হারিয়ে ফেললে তার স্ত্রী রোজিনা বেগম চিৎকার করে কান্নাকাটি করতে থাকেন। এ সময় আশপাশের লোকজন এসে ফয়েজকে নারায়ণগঞ্জ সদরের জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত বলে ঘোষণা করে।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে এ ব্যাপারে বন্দর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. ফখরুদ্দীন জানান, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে যায় এবং পরে মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সদর জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠায়।

এ ঘটনায় অভিযুক্ত বাড়ির মালিকসহ তিনজনকে গ্রেপ্তার করে বন্দর থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে জানান তিনি।

news24bd.tv কামরুল

মন্তব্য