বিয়ের চাপ দেয়ায় প্রেমিকের হাতেই জীবন গেল খুশির

বিয়ের চাপ দেয়ায় প্রেমিকের হাতেই জীবন গেল খুশির

Other

স্বামী প্রবাসে, নতুন করে সম্পর্ক আরেক জনের সাথে। বিয়ের চাপ দেয়ায় সেই প্রেমিকের হাতেই জীবন গেল খুশি বেগমের। সিলেটের ছাতকে একটি ক্লুলেস হত্যাকাণ্ডের রহস্য এভাবেই উম্মোচন করলো অপরাধ তদন্ত বিভাগ সিআইডি। গ্রেপ্তার করা হয়েছে একমাত্র আসামি মহিউদ্দিনকেও।

  

বিয়ের চাপ, অতঃপর প্রেমিকাকে খুন। এমন ঘটনা ঘটে সিলেটের ছাতক এলাকায় গত ১৭ নভেম্বর। খুশি নামের এক তরুণীর সাথে প্রেম হয় তার শিক্ষক মহিউদ্দিনের।

কিন্তু লন্ডনপ্রবাসী এক ব্যক্তির সাথে স্ত্রী হওয়ায় খুশিকে বিয়ে করতে অস্বীকৃতি জানায় সে।   এই বিয়ের চাপের কারনে খুশিকে খুন করে মহিউদ্দিন। শুক্রবার সীতাকুণ্ড থেকে মোহাম্মদ মহিউদ্দিনকে গ্রেপ্তারের পর প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ এসব তথ্য জানায় সে।

ঢাকায় সদর দফতরে শনিবার সংবাদ সম্মেলনে সিআইডি বলছে, পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী পার্শ্ববর্তী ধানক্ষেতে নিয়ে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে পালিয়ে যায় মহিউদ্দিন।

সিআইডি জানায়, রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করলে এ বিষয়ে আরও বিস্তারিত জানা যাবে।

আরও পড়ুন:


আফ্রিকার ৭ দেশ থেকে এলেই ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিন

দুই হাত হারানো ফাল্গুনীকে বিয়ে করলো এনজিও কর্মী সুব্রত

স্বাধীনতার ৫০ বছরে স্বাস্থ্যখাতে অভাবনীয় সাফল্য

ঢাকার যানজটেই শেষ জিডিপির প্রায় ৮৭ হাজার কোটি টাকা

১৭ নভেম্বর বাসা থেকে বের হয়ে যাবার পর ২১ নভেম্বর সকালে ধানক্ষেতে গলায় ওড়না পেঁচানো অবস্থায় খুশির মরদেহ উদ্ধার করা হয়। খুশি কে না পেয়ে ১৯ নভেম্বর পরিবহন শ্রমিক বাবা কবির মিয়া ছাতক থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন।

news24bd.tv/আলী