রোজা মানে শুধু না খেয়ে থাকা না, সুদ, ঘুষ থেকেও বিরত থাকা

রুবাইয়েত সাইমম চৌধুরী

রোজা মানে শুধু না খেয়ে থাকা না, সুদ, ঘুষ থেকেও বিরত থাকা

সিয়াম-রোজা এর অর্থ বিরত থাকা, সংযম প্রদর্শন করা। সুবহে সাদেক থেকে মাগরীব পর্যন্ত পানাহার না করে থাকাই রোজা না- এটা রোজার একটা অংশ মাত্র। একটা কিনলে একটা ফ্রি আর আনসিমিটেড ইফতার ডিনারের অফার দরকারমত বাদ দিতে পারাও রোজার অংশ।

ব্যবসায়ীদের অতিরিক্ত দাম নিয়ে, খারাপ পণ্য দিয়ে, বেশী বেশী মুনাফা করা থেকে বিরত থাকাও রোজা। ডাক্তারদের বিনা প্রয়োজনে অতিরিক্ত টেস্ট লিখে, ইঞ্জিনিয়ারদের রডের বদলে বাঁশ দিয়ে, কন্টাকটারদের সিমেন্টের বদলে বালি দিয়ে, শিক্ষকদের টিওশন পড়তে ছাত্রদের বাধ্য করে, বড় শিক্ষকদের মিথ্যের পক্ষে সাফাই গেয়ে, পুলিশের গাড়ি থামায়ে বিনা করণে মামলার ভয় দেখিয়ে, সচিবদের / সরকারি কর্মকর্তাদের ফাইল আটকে টাকা, সুবিধা, পদ নেওয়া থেকে বিরত থাকাও রোজা।

আরও পড়ুন


সাতক্ষীরায় বাঘের আক্রমণে মৌয়াল আহত

উত্তরায় ৬ তলা ভবনের ছাদ থেকে পড়ে গৃহকর্মীর মৃত্যু

দেশবাসীকে নববর্ষ ও রমজানের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন ওবায়দুল কাদের

রমজানে নতুন রান্না নিয়ে হাজির কেকা ফেরদৌসি


ঝাপিয়ে পরে শপিং করা থেকে বিরত থাকাও রোজা। রোজার আরো একটা সমস্যা আছে। এটি পুরোপুরি পালন করতে হয়। মানে আমি পানাহার করলাম না, কিন্তু ঘুষ খেলাম, অথবা পানাহার করলাম না , ঘুষও খেলাম না কিন্তু একজনের হক মারা যায় এমন কিছু করলাম। তখনও সাধারণত রোজা মাকরূহ হয়ে যায় ( কবুল হবে কিনা এটা আল্লাহ ভালো জানেন)।

আমারতো মনে হয় যদি শুধু এই এক মাস বাংলাদেশের ১৮ কোটি মানুষের মাঝে ৮ কোটি মানুষও একদম ঠিকমত রোজা পালন করেন তাহলে দেশের চেহারা পাল্টে যাওয়ার কথা। আল্লাহ আমাদের রোজা পূর্ণ ভাবে পালন করার তৌফিক দিন।

news24bd.tv আহমেদ

পরবর্তী খবর

শহর ভর্তি সসেজ ক্লাবে মদ, নারী, ডান্স ফুর্তি সব হয়!

তাসলিমা মিজি

শহর ভর্তি সসেজ ক্লাবে মদ, নারী, ডান্স ফুর্তি সব হয়!

শহর ভর্তি সসেজ ক্লাব যেখানে মদ, নারী, ডান্স ফুর্তি সব হয়। আর আছে শহর ভর্তি ধর্মপ্রান মানুষ। তাদের প্রধান শত্রু নারী।

সসেজ ক্লাবে একজন নারী নির্যাতিত হলেও ধর্মপ্রান জাতি ঐ নারী কেন সসেজ ক্লাবে গেল সেটার বিচার করতে করতে হাতুড়ি পিটিয়ে সেগুন টেবিল ভেঙ্গে ফেলে। এর শেষ কোথায়?

(এই বিভাগের লেখার আইনগত ও অন্যান্য দায় লেখকের নিজস্ব। এই বিভাগের কোনো লেখা সম্পাদকীয় নীতির প্রতিফলন নয়।)

news24bd.tv / নকিব

পরবর্তী খবর

রাষ্ট্রের দায়িত্ব নিখোঁজ ব্যক্তিকে উদ্ধারের সর্বাত্মক উদ্যোগ নেয়া

শওগাত আলী সাগর

রাষ্ট্রের দায়িত্ব নিখোঁজ ব্যক্তিকে উদ্ধারের সর্বাত্মক উদ্যোগ নেয়া

আবু ত্ব-হা মোহাম্মদ আদনানকে নিয়ে বেশ কয়েকদিন ধরেই আলোচনা হচ্ছে। তিনি নিখোঁজ হয়েছেন এই মর্মে থানায় সাধারন ডায়েরী হয়েছে, তাঁর স্ত্রী সংবাদ সম্মেলন করে ‘আদনানকে তাঁর কাছে ফিরিয়ে দেয়ার’ দাবি জানিয়েছেন।

আদনান কীভাবে নিখোঁজ হয়েছেন- সেই ব্যাপারে তেমন কোনো তথ্য নাই। তাঁর স্ত্রীর ‘তাকে আমার কাছে ফিরিয়ে দিন’- এই বক্তব্যকে গুরুত্ব দিলে ধরে নিতে হয় ‘আদনানকে কেউ তুলে নিয়ে গেছে- এমন একটি অভিযোগ তার স্ত্রী করতে চাচ্ছেন’।

সত্যি বলতে কি আদনান কে এই সম্পর্কে আমার কোনো ধারনা নাই। পত্রিকায় তাঁকে ইসলামী বক্তা হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে। ধরে নিলাম, আদনান একজন সাধারন নাগরিক। একজন সাধারন নাগরিক নিখোঁজ হয়ে গেলে বা তাঁকে খুঁজে পা্ওয়া না গেলে- রাষ্ট্রের দায়িত্ব হচ্ছে নিখোঁজ ব্যক্তিকে উদ্ধারের সর্বাত্মক উদ্যোগ নেয়া।


আরও পড়ুনঃ

আবু ত্ব-হা আদনানকে খুঁজে দিতে জাতীয় দলের ক্রিকেটার শুভর আহ্বান

গণপূর্ত ভবনে অস্ত্রের মহড়া: সেই আ.লীগ নেতাদের দল থেকে অব্যাহতি

আবারও মিয়ানমারের গ্রামে তাণ্ডব চালিয়েছে সেনাবাহিনী

সুইসদের হারিয়ে সবার আগে শেষ ষোল নিশ্চিত করল ইতালি


রাষ্ট্রের সংশ্লিষ্ট বাহিনীগুলো এই ব্যাপারে কী ধরনের উদ্যোগ নিয়েছে তার কোনো তথ্য সংবাদ মাধ্যমে পাওয়া যায় না। এই ধরনের ঘটনায় সরকারি কর্তৃপক্ষের ঢিলেমি বা ব্যবস্থা গ্রহনে অনীহা মানুষের মনে নানা ধরনের প্রশ্নের জন্ম দেয়। এতে সরকারের প্রতিই সংশয় তৈরি হয়।

আবু ত্ব-হা মোহাম্মদ আদনানকে খুঁজে বের করার দৃশ্যমান পদক্ষেপ নেয়া হোক।

news24bd.tv / নকিব

পরবর্তী খবর

বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে তেমন গদগদ হওয়ার মতো স্মৃতি আমার নাই

ইশরাত জাহান ঊর্মি

বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে তেমন গদগদ হওয়ার মতো স্মৃতি আমার নাই

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এক্স স্টুডেন্টস এসোসিয়েশন থেকে বের হয়ে গেলাম। অত্যন্ত ন্যারো, আনস্মার্ট, আনপ্রোডাকটিভ কখনও কখনও জেন্ডার ইনসেনসেটিভ পাড়ার মোড়ের চা এর দোকানের মতো লাগতেছিল আমার। মে বি আয়াম রং। হয়তো অনেক বুদ্ধিদীপ্ত, প্রডাকটিভ পোস্ট আমার চোখে পড়ে নাই।

যা হোক, আই কুইট কজ এমনিতেই হাগার হাগার (হাজার হাজার) ফলোয়ারের একটা বাজারে তো আছিই, যে কোনও ছবি দেয়া মাত্র নামে বেনামে সেইগুলা শেয়ার হয়, কোথায় শরীরের কত অংশ দেখা গেল তার চুলচেরা বিশ্লেষণ হয়-নানান ধরনের সার্ভিলেন্সের মধ্যে তো আছিই, নতুন বিরক্তি নিতে ভাল্লাগে না। 

তাছাড়া বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে তেমন গদগদ হওয়ার মতো স্মৃতি আমার নাই। তাসনীম সিদ্দিক, জাহিদ হাসান চৌধুরী আর শান্তুনু মজুমদার ছাড়া আর কোনো টিচারের কথা মনে করতে পারি না যাদের পড়ানো কাজে লেগেছে। বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ছি বইলা ফিল্ম সোসাইটি, আবৃত্তির গ্রুপ করতে পারছি, ব্রিটিশ কাউন্সিল, ন্যাশনাল মিউজিয়াম, পাবলিক লাইব্রেরিতে মুভি দেখছি, চারুকলায় চিত্র প্রদর্শনী।

আরও পড়ুন


এবার আবু ত্ব-হা আদনানের সন্ধান চাইলেন আসিফ আকবর

সিলেটে মা ও ভাই-বোনকে হত্যা: নানাবাড়িতে থাকায় বেঁচে যায় আফসান

নওগাঁয় ছাত্রীকে ধর্ষণচেষ্টার শাস্তি তিন থাপ্পড়, জরিমানার টাকাও মাতব্বরের পকেটে

যানজট থেকে মুক্তি দিতে জয়দেবপুর-কমলাপুর বিশেষ ট্রেন


আই থিংক যে এইখানে না পড়লেও সেসব করতে পারতাম। এই বিশ্ববিদ্যালয় ইভেন আমারে পলিটিকালিও কনসাস করে নাই। তবে হ্যাঁ সস্তায় পড়ছি। আজকাল মনে হয়, এই সস্তায় পড়াই আমার ১২টা বাজাইছে। দাম দিয়ে পড়লে আরেকটু যোগ্য হইতাম, আরো ভালো কোনও প্রফেসন পাইতাম। যা হোক, মোদ্দা কথা, যে বিশ্ববিদ্যালয় মনন নির্মাণে রোল প্লে করে নাই আমার, সেই বিশ্ববিদ্যালয়ের "এক্স" হয়া ল্যালল্যাল করতে ইচ্ছা নাই।  

কারুর বিশ্ববিদ্যালয় অনুভূতিতে আঘাত দিয়া থাকলে স্যরি।

news24bd.tv এসএম

পরবর্তী খবর

ত্বহার মনগড়া ধর্মীয় বক্তব্য নিয়ে আপত্তি করেছেন আলেম সমাজ

একরামুল হক

ত্বহার মনগড়া ধর্মীয় বক্তব্য নিয়ে আপত্তি করেছেন আলেম সমাজ

আবু ত্ব-হা মোহাম্মদ আদনান। বাংলা ও ইংরেজি সংমিশ্রণে শিক্ষায় শিক্ষিত। তিনি নিখোঁজ। তাঁকে বের করার দায়িত্ব রাষ্ট্রের। তিনি আবার পরিবারের সদস্যদের কাছে ফিরে আসুক। এই দাবি করছি।

তবে তাঁর মনগড়া ধর্মীয় বক্তব্য নিয়ে আপত্তি করেছেন আলেম সমাজ। যেমন মাসিহুদ দাজ্জাল নিয়ে তাঁর বক্তব্য মনগড়া। তিনি বলেছেন, দাজ্জাল কোনো দ্বীপের মধ্যে শিকল দিয়ে বাঁধা নেই। ইসরায়েলের জেরুজালেম থেকে সে বের হবে। সে সাধারণ মানুষের মতো একজন শক্তিশালী শাসক হবে। তখন ইসরায়েল সারা বিশ্বকে শাসন করবে। 

অথচ ইসলামিক পণ্ডিতেরা হাদিসের উদ্ধৃতি বলে আসছেন, দাজ্জাল একটা দ্বীপের মধ্যে শিকল দিয়ে বাঁধা আছে। খোরাসান (বর্তমান আফগানিস্তান) থেকে সে বের হবে।

 সাংবাদিক একরামুল হকের ফেসবুক থেকে নেওয়া।

news24bd.tv/আলী

 

পরবর্তী খবর

পরীদের আয়ের উৎস কি খোঁজা হয়?

কাজী শরীফ

পরীদের আয়ের উৎস কি খোঁজা হয়?

এদেশে একজন মানুষ মাসে পঁচিশ হাজার টাকা উপার্জন করলেই তাকে আয়কর দিয়ে হয়। গাড়ি, বাড়ি, জমি কিনতে গেলে আয়ের উৎস দেখাতে হয়। পাঁচ হাজার টাকার বেশি কোন ব্যাংক অ্যাকাউন্টে পাঠাতে জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি দিতে হয়।

কিন্তু দশটা সিনেমা করে নয়টা ফ্লপ হওয়া নায়ক নায়িকা তিন কোটি টাকা দিয়ে গাড়ি কিনে ফেলে নিমিষেই। বছরে চারবার গাড়ির মডেল বদলায়। বছরে একবার ইউরোপ টুর দেয় আর কেনাকাটা করে আমেরিকায়। তাদের আয়ের উৎস কি খোঁজা হয়?

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর