কাচের দুনিয়াতে ঠুনকো ক্ষমতা

নঈম নিজাম

কাচের দুনিয়াতে ঠুনকো ক্ষমতা

‘তুমি দিন থাকিতে দিনের সাধন কেন করলে না

সময় গেলে সাধন হবে না’

-ফকির লালন শাহ
হিসাব-নিকাশের ক্ষণগুলো ভীষণ জটিল। সম্পর্কের বাঁধনগুলো আলগা হয়ে যায় স্বার্থের কঠিনতম অধ্যায়ে। সুখের সময়ের পরশ সবাই নেয়। খারাপ সময়ে কেউ কারও নয়। বিপদে পড়লে মানুষ টের পায় আপন-পর। আমার এক বন্ধু বললেন, খারাপ সময়ে দেখেছি কেউ খোঁজ নেয় না। কারও বিপদ দেখলে আড়াল থেকে নীরব আনন্দ প্রকাশ করে। আসলেই তাই। আপনজন বোঝা যায় খারাপ সময়ে। পরীক্ষিত মানুষকে দূরে ঠেলে দেওয়ার খেসারত ভালো হয় না। সব কিছু নিয়ে অতিরিক্ত পরীক্ষা-নিরীক্ষাও মানুষের দূরত্ব বাড়িয়ে দেয়। কিন্তু ক্ষমতা বড় নিষ্ঠুর। আপন-পর বোঝে না। ক্ষমতাকালে কাছে থাকে শুধুই চাটুকাররা। বেনজির ভুট্টো ক্ষমতায় থাকাকালে একবার ডাকলেন তার রাজনৈতিক শিক্ষক ড. গোলাম হোসেনকে। এ মানুষটি স্পষ্ট কথা বলতেন। কে খুশি আর মন খারাপ করবে চিন্তা করতেন না। বেনজির জানতে চাইলেন, জুলফিকার আলী ভুট্টোর সঙ্গে তার মেয়ের কী পার্থক্য দেখছেন? জবাবে ড. গোলাম হোসেন বললেন, বাদ দিন এসব আলোচনা এই সময়ে। বেনজির আবার বললেন, প্লিজ বলুন, আমি শুনতে চাই। ড. গোলাম হোসেন চুপ হয়ে গেলেন। তারপর বললেন, ‘জুলফিকার আলী ভুট্টোর শাসনামলে আমরা মিথ্যা কথা বলতে ভয় পেতাম। এখন আপনার সামনে সত্য বলতে ভয় পাই।’ বেনজির থতমত খেলেন। এমন বক্তব্য আশা করেননি। কথা আর বাড়ালেন না। এ ঘটনার অনেক বছর পর ফাতিমা ভুট্টো সাক্ষাৎ করলেন গোলাম হোসেনের সঙ্গে। পিতা মুর্তজা ভুট্টোর পুলিশের গুলিতে মৃত্যুর ঘটনায় ক্ষুব্ধ, ব্যথিত ফাতিমা। ফুফুর প্রতি তিক্ততার শেষ ছিল না। গোলাম হোসেন বললেন, দলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক হিসেবে একবার আমাকে কেন্দ্রীয় কমিটির সভায় ডাকা হয়েছিল। দেখতে পেলাম, চারদিকে নবাগত মোসাহেবরা বসে আছে। তাদের সামনেই বললাম, বেনজির সাহেবা! আপনার লোকেরা যে চাকরি, টেন্ডার বিক্রি করছে, আপনি কি জানেন? জবাবে বেনজির বললেন, ‘ওঃ ডক্টর! আপনি আগের দিনের মানুষ। এখন নতুন যুগ। এই সময়ে নওয়াজ শরিফের সঙ্গে আমাদের পাল্লা দিয়ে চলতে হবে।’ জবাবে ড. হোসেন বললেন, আপনি কি মনে করেন অর্থ দিয়ে বিশ্বাসযোগ্যতা কিনতে পারবেন? আপনি তা কোনোভাবেই পারবেন না।

জুলফিকার আলী ভুট্টোর নাতনি ফাতিমা ভুট্টোর বইতে গোলাম হোসেনের সেই কথাগুলো আছে। ফাতিমা মনে করেন, ক্ষমতা আর আসিফ আলী জারদারির কান্ডকীর্তি বদলে দিয়েছিল তার ফুফুকে। কাচের তৈরি দাম্ভিকতায় ছিল বাস। ফাতিমা কঠোর সমালোচনা করেন বেনজির ও তার স্বামী আসিফ আলী জারদারির। দুঃখ করেছেন, ভাই মুর্তজা ও মা নুসরাতের প্রতি প্রধানমন্ত্রীর আচরণে। দুনিয়ার কোনো ক্ষমতার আপন-পর নেই। বেনজির ক্ষমতায় থাকাকালে মুর্তজা মারা যান পুলিশের গুলিতে। এ ঘটনায় হতভম্ভ হয়ে যান মা নুসরাত ভুট্টো। কেমন করে কী হলো বুঝতে বুঝতেই ভুট্টো পরিবার তছনছ হয়ে গেল। বিশাল দূরত্ব তৈরি হয়ে গেল পরিবারের মাঝে। জুলফিকার আলীর সমর্থকরা দ্বিধাবিভক্ত হয়ে গেল। আর ছোটবেলায় যে ফুফুর আদরে বেড়ে ওঠা তাকে ক্ষমা করতে পারেননি ফাতিমা। শুধু ফাতিমা নন, তার দাদিও কন্যার প্রতি খুশি ছিলেন না। ক্লিফটন রোডে বেনজিরের বেড়ে ওঠা বাড়িতে একদিন পুলিশি হামলা ও গুলি হয়েছিল। সে সময় বাড়ির অন্দরে ছিলেন নুসরাত ভুট্টো ও মুর্তজার পরিবার। ব্যথিত ক্ষুব্ধ নুসরাত মেয়েকে বলেছিলেন, ক্ষমতার মোহে তুমি অন্ধ হয়ে গেছ। ভুলে গেছ নিজের অতীত। এই দিন থাকবে না। আর মিডিয়াকে নুসরাত বলেন, ‘সে গণতন্ত্রের কথা বলে কিন্তু হয়েছে খুদে একনায়ক।’ মায়ের এসব মন্তব্যে পাল্টা কোনো মন্তব্য করতেন না বেনজির। তবে দূরত্ব কমানোর চেষ্টা করেন। কিন্তু পারলেন না। বরং দূরত্ব বাড়ল। বেনজিরের ছোট বোন মামলা করলেন ক্লিফটন রোডের বাড়ির মালিকানা নিয়ে। আর চিকিৎসার কথা বলে বেনজির মাকে নিয়ে গেলেন মুর্তজার সন্তানদের কাছ থেকে। আমেরিকা ঘুরিয়ে দুবাইতে রাখেন। আরাম-আয়েশের কমতি ছিল না। কিন্তু মায়ের মন আর পেলেন না। মেয়ের বাড়িতে থাকলেও স্তব্ধ হয়ে কথা বলতেন না। চিকিৎসকরা বললেন, মনের গভীরে কোনো ক্ষত থেকেই তিনি স্তব্ধ হয়ে গেছেন। বেনজির চেষ্টা করলেন অনেক। মায়ের পাশে থাকতেন। কিন্তু কিছু হলো না। হায়! এই জীবনের গতিবাঁকে কত কি রহস্য থাকে। সে রহস্য কেউই ভেদ করতে পারে না। জিয়াউল হকের বিরুদ্ধে মা ও মেয়ের আন্দোলন দুনিয়া কাঁপিয়ে দিয়েছিল। অথচ ভুট্টোর ওয়ারিশ প্রশ্নে লন্ডভন্ড হয়ে যায় সব।

ইতিহাস সব সময় নিষ্ঠুর। ক্ষমতার রাজনীতি মানুষকে বদলে দেয়। মুঘল বাদশাহরা ক্ষমতা নিতেন এক ভাই আরেক ভাইকে হত্যা করে। মার্কিন ইতিহাসবিদ অড্রে ট্রাশকার গবেষণায় আওরঙ্গজেবের অনেক নিষ্ঠুরতাই বেরিয়ে আসে। বাদশাহদের মধ্যে তিনি ধর্মকর্ম বেশি করতেন। দীর্ঘ সময় শাসন করেছেন। বাড়িয়েছেন মুঘল সাম্রাজ্যের সীমানা। চলতেন নিয়ম মেনে। রাজকোষের অর্থ ব্যয়ে সতর্ক থাকতেন। মদপান করতেন না। শুধু প্রেমের কারণে একবার মদের পেয়ালা হাতে নিয়েছিলেন। পান করতে হয়নি। প্রেমিকার নাম ছিল হীরা বাই জাহানাবাদী। তার সঙ্গে সাক্ষাতের পর হারিয়ে ফেলেন। একবার চাচির সঙ্গে দেখা করতে গিয়ে হীরা বাইকে খুঁজে পান। নতুন করে হীরা বাইকে দেখে হৃদয়ে জ্বলে ওঠে পুরনো তুষের আগুন। বললেন ভালোবাসার কথা। বিশ^াস-অবিশ^াসের দোলায় হীরা বাই। রাজকুমারদের ভালোবাসার মেয়াদ এক রাতের বেশি থাকে না। কিন্তু আওরঙ্গজেব ছিলেন প্রেমের বাদশাহ শাহজাহানপুত্র। কঠোরতার সব খোলস থেকে বেরিয়ে এলেন। সত্যিকারের ভালোবাসলে প্রমাণ চান হীরা বাই। আসরের লোক ছিলেন না আওরঙ্গজেব। তার পরও ভালোবাসার প্রমাণ দিতে মদের পেয়ালা হাতে নেন। হীরা বাই থামিয়ে দিলেন সম্রাটকে। বললেন, আর না, অনেক হয়েছে। তারপর অশ্রুর বন্যায় ভেসে প্রেমের সিংহাসনে ঠাঁই দিলেন দিল্লির বাদশাহকে। কিন্তু এ প্রেমের কাহিনি বেশি দূর যায়নি। কিছুদিন পরই হীরা বাই অল্প বয়সে মারা যান। থেমে যায় আওরঙ্গজেবের প্রেমের অধ্যায়। জীবনের শেষ দিনগুলোয় আওরঙ্গজেব ছিলেন স্ত্রী উদয়পুরীর সঙ্গে। ছোট ছেলে কামবাখাশ তাদের সঙ্গে থাকতেন। ১৭০৭ সালে আওরঙ্গজেরের মৃত্যুর কয়েক মাস পর উদয়পুরীও মৃত্যুবরণ করেন। আর আওরঙ্গজেবকে দাফন করা হয় মহারাষ্ট্রের খুলদাবাদে একটি কাঁচা সাধারণ কবরে। মুঘল সম্রাটদের সাদামাটা কবরের নজির নেই। আওরঙ্গজেবের বাবা-মায়ের কবর তাজমহলে। কিন্তু সেই আওরঙ্গজেব অছিয়ত করেন তাকে যেন শায়িত করা হয় সাধারণ কবরে।

আওরঙ্গজেবের বোন জাহানারার দাফন হয়েছিল দিল্লির নিজামুদ্দিনে। মৃত্যুর আগে তিনিও দাফনের স্থান পছন্দ করে অছিয়ত করেন। এই জাহানারা ছিলেন বাবার বন্দীজীবনের সঙ্গী। শাহজাহানপুত্রদের মধ্যে তখন ক্ষমতার তীব্র লড়াই। বাবাকে বন্দী করে আওরঙ্গজেব ভাইদের হত্যা করেন। শুরুটা হয় মুরাদকে দিয়ে। অথচ এ মুরাদই মসনদ দখলে ছিলেন তাঁর পাশে। ক্ষমতা নিয়ে দুই ভাইয়ের অনেক অঙ্গীকার ছিল। কিন্তু ক্ষমতার বাস্তবতা আবেগকে ছুড়ে ফেলে মুহূর্তে। রাতের খাবার খেতেই ডেকেছিলেন মুরাদকে। খাবার টেবিলে মদের আয়োজনও ছিল। সুন্দরী পরিচারিকা ছিলেন দায়িত্বে। মুরাদ খোশমেজাজে এলেন। ভাবলেন, ভাইয়ের সঙ্গে কথা হবে ক্ষমতার ভাগাভাগি নিয়ে। সিদ্ধান্ত হবে আগামী দিনের মুঘল সামাজ্যের বিস্তার নিয়ে। সাহসী মুরাদ ছিলেন অনেকটা একরোখা। তরবারি হাতে থাকলে তাকে বন্দী করা ছিল কঠিন। তাই কৌশলের আশ্রয় নেন আওরঙ্গজেব। ডিনার টেবিলে সুন্দরীদের কাজ ছিল মুরাদের গ্লাস খালি হতে না দেওয়া। পান করতে করতে মাতাল হয়ে ওঠেন মুরাদ। নারী পরিচারিকা তাকে ধরে ধরে তাঁবুতে নিয়ে যান। তার ওপর দায়িত্ব ছিল মুরাদ ঘুমিয়ে পড়লে তরবারি সরিয়ে ফেলার। মুরাদের সঙ্গে কোনো অস্ত্র রাখা যাবে না। অস্ত্র ও সৈন্যহীন মুরাদ গভীর ঘুমে তলিয়ে যান। ঘুম থেকে জেগে দেখেন তাকে ঘিরে রেখেছে সেনারা। অস্ত্রহীন মুরাদ বন্দী হন। একটি হত্যাকান্ডের অপরাধে প্রথমে পাঠানো হয় কারাগারে। তারপর বিচার যায় কাজীর দরবারে। কাজী সাহেব বিচার করলেন বাদশাহর মেজাজ বুঝে। রায় হলো মৃত্যুদন্ড।

ক্ষমতার লড়াই থেকে মুরাদ সরে গেলেন। সামনে বড় বাধা শুধুই দারাশিকো। মুরাদকে সরিয়ে নজর দেন দারাশিকোর দিকে। দারা যুদ্ধে পরাজিত হয়ে পালাতে থাকেন। বারবার এলাকা বদল করে কঠিনতম সময়ে আশ্রয় নেন মালিক জিওয়ান নামের এক বেলুচ সর্দারের। একদিন সম্রাট শাহজাহানের দরবারে মৃত্যুর মুখোমুখি হয়েছিলেন এই মালিক জিওয়ান। দারা কৌশলে তাকে রক্ষা করেন। সেই কৃতজ্ঞতা থেকে আশ্রয় দেন দারাকে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত সেই বিশ^াস রাখলেন না। বিশ^াসঘাতকরা পরে দারাকে তুলে দেয় আওরঙ্গজেবের সৈন্যদের কাছে।

ক্ষমতা সব সময় নিষ্ঠুর। মুঘলদের ক্ষমতার অন্দরমহল সব সময় ভয়াবহ ছিল। দারা এবং তার ১৪ বছর বয়সী ছেলেকে আটক করা হয়। তারপর তাদের দিল্লিতে ঘোরানো হয় চর্মরোগে আক্রান্ত হাতির পিঠে চড়িয়ে। খারাপভাবে অপদস্থ করা হয়। শুরু হয় বিচার প্রক্রিয়া। দারাকে নাস্তিক সাব্যস্ত করে মৃত্যুদ- দেওয়া হয়। এ বিচার নিয়ে দরবার বিভক্ত ছিল। কিন্তু শেষ রক্ষা হলো না দারার। নিষ্ঠুরতা এখানেই থামল না। দারার আরেক ছেলেকে হত্যা করা হয় বিষ প্রয়োগে। আওরঙ্গজেব ছাড় দেননি ভাই সুজাকেও। শাহ সুজা ছিলেন বাংলা বিহার উড়িষ্যার শাসনক্ষমতার দায়িত্বে। খাজুয়া যুদ্ধে সুজার পরাজয় হয়। সুজা প্রথমে বাংলা পরে আরাকানে পালিয়ে যান। যাওয়ার পথে তিনি চট্টগ্রামে কিছু দিন অতিবাহিত করেন। মগরাই তাকে আমন্ত্রণ জানিয়ে আরাকানে নিয়ে যায়। পরে তাদের সঙ্গে মতবিরোধ হলে হত্যা করে। সম্রাট শাহজাহানের তিন পুত্রকে নিষ্ঠুর পরিণতি বরণ করে নিতে হয়। আরেক পুত্র টানা ক্ষমতা ভোগ করেন।

দিল্লি গেলে আমি নিজামুদ্দিনে যাই। একবার অনেক রাতে নিজামুদ্দিনে গিয়েছিলাম জিয়ারত করতে। পরিবেশটা আমার ভালো লাগে না। আজমিরের পরিবেশও একই। নিজামুদ্দিনের জিয়ারতের সময় মনে হলো সম্রাট শাহজাহান-কন্যা জাহানারার কথা। তিনি এখানেই শায়িত আছেন। জাহানারা বিয়ে করেননি। গভীর একটা প্রেম ছিল। সেই প্রেমিককে নিষ্ঠুরভাবে হত্যা করেন প্রেমের অমর অধ্যায় রচনাকারী তাজমহলের স্রষ্টা শাহজাহান। কাঠের পাটাতনে পেরেক ঠুকিয়ে হত্যা করা হয় জাহানারার প্রেমিককে। চিৎকার করে কাঁদলেন জাহানারা। তারপর নীরব হয়ে যান। বাবার বিরুদ্ধে টুঁশব্দ করেননি। বরং বন্দী শাহজাহানের পাশে পুরো সময় কাটিয়েছেন সেবাযত্ন করে। জাহানারার জন্য প্রার্থনা করলাম। এ জগৎসংসার বড় রহস্যময়। হিসাব-নিকাশের খাতা অনেক দীর্ঘ। মুহূর্তেই তছনছ হয়ে যায় সবকিছু। কিছুই থাকে না। মাটির দেহ মিশে যায় একসময়। দুনিয়ার কোনো ক্ষমতাবান টিকে থাকে না। মিছে একটা অহংকার নিয়ে সবাই থাকে। শেখ সাদি লিখেছেন, ‘মানুষ এমনভাবে জীবনযাপন করে যেন কখনো মরতে হবে না। আবার এমনভাবে মরে যায় যেন কখনই বেঁচে ছিল না।’ ক্ষমতার কোনো অহংকারী যুগ থাকতে পারে না।

সামান্য ধূলিঝড়ে দম্ভ চুরমার হয়ে যায়। নিভে যায় হিংসা, ঈর্ষার অনল। শাহজাহান কি ভেবেছিলেন আদরের পুত্র বন্দী করবে তাকে? বেনজির কি ভেবেছিলেন স্নেহের ভাতিজি ফাতিমা তাকে ভাই হত্যার কাঠগড়ায় আনবেন একদিন? সুরা আলে ইমরানের ১৪০ নম্বর আয়াতে বলা হয়েছে, ‘মানুষের মধ্যে এই দিনগুলির (সুদিন দুর্দিন বা জয়-পরাজয়) পর্যায়ক্রমে আমি আবর্তন ঘটাই।’ সুরা আরাফের ১৩৭ নম্বর আয়াতে এ ব্যাপারে আরও পরিষ্কার ব্যাখ্যা রয়েছে- ‘আল্লাহ রব্বুল আলামিন ধৈর্যধারণকারী বনি ইসরাইলকে ভূখন্ডের মালিক করে দিয়েছেন। আর ধ্বংস করেছেন ফেরাউন, তার জাতি, শিল্পকর্ম, উঁচু প্রাসাদ সবকিছু।’ আল্লাহ কোনো বাড়াবাড়িই পছন্দ করেন না। সব দাম্ভিকতার অবসান ঘটান নিষ্ঠুরভাবে। ক্ষমতা একটা ঠুনকো বিষয়। করোনা প্রমাণ করে দিয়ে গেছে আজ আছি কাল নেই।

কাচের এ দুনিয়ায় ক্ষমতা নিয়ে বাহাদুরির কিছু নেই। ছোট্ট একটি ঢিলে সব শেষ হয়ে যাবে। এ লেখা শেষ করছি মহানবী (সা.)-এর বিদায় হজের একটি লাইন দিয়ে। নবীজি বলেছেন, ‘সাবধান! ধর্মের ব্যাপারে বাড়াবাড়ি করবে না। কেননা তোমাদের পূর্ববর্তী লোকেরা ধর্মীয় বিষয়ে বাড়াবাড়ি করার কারণে ধ্বংস হয়ে গেছে।’ ইসলাম শান্তির ধর্ম। অশান্তির অনল জ্বালিয়ে ইসলাম কায়েম হয় না। বরং আমাদের অর্জিত অসাম্প্রদায়িকতা নষ্ট হয়। তাই শান্তি ও স্থিতি ধরে রাখতে সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে। আইন কেউ হাতে তুলে নিলে অবশ্যই শাস্তি দিতে হবে।

লেখক: সিইও, নিউজ টোয়েন্টিফোর ও সম্পাদক, বাংলাদেশ প্রতিদিন।

মন্তব্য