দহগ্রামের তিনবিঘা করিডোরে বিএসএফের কার্যক্রমকে রুখে দিল বিজিবি

অনলাইন ডেস্ক

দহগ্রামের তিনবিঘা করিডোরে বিএসএফের কার্যক্রমকে রুখে দিল বিজিবি

লালমনিরহাটের পাটগ্রাম উপজেলার আলোচিত দহগ্রাম ইউনিয়নের মানুষকে দেশের মূল ভূ-খণ্ডের সাথে যোগাযোগের জন্য ব্যবহার করা হয় 'তিনবিঘা করিডোর'। ভারতীয় কর্তৃপক্ষ সেই তিনবিঘা করিডোর সংস্কারের নামে সংকুচিত করতে থাকে। এই করিডোরটি মূলত ব্যবহৃত হয় দেশের মানুষের চলাচলের জন্য।

কৌশলে এই সড়কটির দুই পাশে ভারতীয় কর্তৃপক্ষ ৩ ফুট উঁচু দেয়াল নির্মাণের চেষ্টা চালায়। এ ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়ে বুধবার (৮ সেপ্টেম্বর) সকাল সাড়ে ৯টায় নির্মাণকাজ বন্ধ করে দিয়েছে বিজিবি।

জানা গেছে, গত তিনদিন থেকে তিনবিঘা করিডোর সড়কে ১০ ফুট গর্ত করতে থাকে ভারতীয় কর্তৃপক্ষ। ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর (বিএসএফ) নিয়ন্ত্রাণাধীন সড়কটি ঘিরে দেয়াল নির্মাণের জন্য লোহার ফর্মাও বসায়। বিজিবিকে বিএসএফ জানান সড়কটি সংস্কার করে সৌন্দর্য্য বর্ধন করা হবে। পরে একপর্যায়ে স্থানীয় বাসিন্দা ও বিজিবি বুঝতে পারে সংস্কার ও সৌন্দর্য্য বর্ধনের নামে মূলত সড়কটি সংকুচিত করতে চাচ্ছে বিএসএফ। কাজের ধরণ সন্দেহজনক হওয়ায় স্থানীয় জনসাধারণ, জনপ্রতিনিধি ও বিজিবি সড়ক সংস্কার কাজে বাধা দেয়। বিএসএফ বাধা না মেনে শ্রমিকদের দিয়ে কাজ অব্যাহত রাখার চেষ্টা চালালে বিজিবি তা রুখে দেয়। পরে উভয় বাহিনীর কম্পানি কমান্ডার ঘটনাস্থলে আলোচনা করে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে ঘটনা জানায় ও কাজ বন্ধ রাখে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও বিজিবি সূত্রে জানা গেছে, বাংলাদেশের মূল ভূ-খণ্ড পাটগ্রাম উপজেলার কুচলিবাড়ি ইউনিয়নের পানবাড়ি এলাকা সংযুক্ত হতে দহগ্রাম ইউনিয়নের ভূ-খণ্ড পর্যন্ত ১৭৮ মিটার দৈর্ঘ্য ও ৮৫ মিটার প্রস্থ্যের ভারতীয় এ তিনবিঘা করিডোর সড়কটি। তিনবিঘা করিডোর ২৪ ঘণ্টা ব্যবহারের জন্য ২০১১ সালের ১৯ অক্টোবর বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভারত সরকারের সাথে আলোচনা করে খুলে দেন। সে থেকে একটানা সড়কটি ব্যবহার করছে বাংলাদেশের মানুষ।

আরও পড়ুন


বসিলায় জঙ্গি আস্তানা: অস্ত্র, নগদ টাকা ও বিস্ফোরক দ্রব্য উদ্ধার

মহড়ায় অন্যের প্রাণ বাঁচাতে গিয়ে মারা গেলেন রাশিয়ার মন্ত্রী

জঙ্গি আস্তানায় চলছে র‌্যাবের অভিযান, আটক ১

যে আইনে চলবে তালেবান সরকার


বিজিবি দাবি করেছে, দায়িত্বরত বিজিবিকে ভারতীয় বিএসএফ ভুল তথ্য দিয়ে জানায়, ‘সড়কটি সংস্কার করে সৌন্দর্য্য বর্ধন করা হবে।’ এর দুই দিনে সড়কের প্রায় অর্ধেকে অংশে গর্ত করা হয়। করিডোর সড়কের পূর্ব- দক্ষিণ দিকে লোহার ফর্মা বসিয়ে ৩ ফুট উচু দেয়াল নির্মাণ করতে থাকে। ভারতীয় কর্তৃপক্ষ যেভাবে নির্মাণ কাজ সম্পন্ন করতে প্রক্রিয়া করছিল, সেভাবে নির্মাণ সম্পন্ন করা হলে বাংলাদেশি জনসাধারণ ও যানবাহন চলাচলে বিঘ্ন সৃষ্টি হতো। বিষয়টি বুঝতে পেরে কাজ বন্ধে বুধবার (০৮ সেপ্টেম্বর) সকালে বাধা দেয় বর্ডার গার্ড (বিজিবি)। এরপরও বিএসএফ কাজ করার জন্য নির্মাণ সংশ্লিষ্ট ভারতীয় লোকজনদের নির্দেশ দেয়। এতে দায়িত্বরত বিজিবি সদস্যরা তীব্র প্রতিবাদ জানান। এসময় প্রবল উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। পরে ঘটনাস্থলে ভারতীয় ৪৫ রানীনগর বিএসএফ ব্যাটালিয়নের তিনবিঘা ক্যাম্পের কম্পানি কমান্ডার বিকাশ রায় ও বাংলাদেশের ৫১ বিজিবি ব্যাটালিয়নের পানবাড়ি কম্পানি কমান্ডার জাহাবুল ইসলাম সংশ্লিষ্ট সদস্যদের নিয়ে আলোচনা করেন। পরে কাজ বন্ধে একমত হয়। বর্তমানে বিজিবির বাধার মুখে কাজ বন্ধ রয়েছে।

দহগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কামাল হোসেন প্রধান বলেন, ‘তাঁরা (ভারতীয় কর্তৃপক্ষ) রাস্তা খুঁড়ছিল। সৌন্দর্য নাকি বৃদ্ধি করবে। মঙ্গলবার রাতে দেখি ফর্মা বসিয়েছে, ওখানে নাকি ৩ ফুট দেয়াল দিবে- এতে তো মানুষের চলাচলে সমস্যা হবে। ইউনিয়নের লোকজন, বিজিবিসহ নির্মাণ কাজ বন্ধে বাধা দেই।’

৫১ বিজিবি (বর্ডারগার্ড বাংলাদেশ) ব্যাটালিয়নের পানবাড়ি ক্যাম্পের কম্পানি কমান্ডার সুবেদার জাহাবুল ইসলাম বলেন, ‘ভারতীয় নির্মাণ শ্রমিকদের দিয়ে রাস্তার দুই পাশে সংস্কারের নামে দেয়াল নির্মাণ করছিল। আমরা বাধা দিয়েছি।’

news24bd.tv এসএম

পরবর্তী খবর

ফ্যানের সঙ্গে ওড়না পেঁচিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীর আত্মহত্যা

অনলাইন ডেস্ক

ফ্যানের সঙ্গে ওড়না পেঁচিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীর আত্মহত্যা

নিজ বাড়িতে ফ্যানের সঙ্গে ওড়না পেঁচিয়ে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থীর আত্মহত্যা করেছেন। নিহত শিক্ষার্থী ইমরুল কায়েসের বাড়ি যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার গঙ্গানন্দপুর গ্রামে। বৃহস্পতিবার (২৩ সেপ্টেম্বর) রাত ৩টার দিকে আত্মহত্যা করেন।

কায়েস রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী। বাবা শহীদুল্লাহ ও মা একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করেন। তিন ভাই-বোনের মধ্যে দ্বিতীয় কায়েস। 

আরিয়ান নামে কায়েসের এক সহপাঠী জানায়, বৃহস্পতিবার রাত ৩টার দিকে রুমের দরজা বন্ধ করে ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে কায়েস। ঘটনার কিছু দিন আগে মায়ের কাছে মোটরসাইকেল কিনতে চেয়েছিল। মোটরসাইকেলও কিনে দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু ঘটনার আগে একটি ডিএসএলআর ক্যামেরা কিনতে চায়। কিন্তু মধ্যরাতে ক্যামেরা কিনতে যাওয়া যাবে না বলে মা তাকে বোঝানোর চেষ্টা করে। এরপর সে রুমের দরজা বন্ধ করে গলায় ফাঁস দেয়। পরে রুমের দরজা ভেঙে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

তার সহপাঠীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, কায়েস মানসিকভাবে বিপর্যস্ত ছিল। পুনর্বাসন কেন্দ্রেও ছিল কিছু দিন। এর মধ্যে বিভাগের ভর্তি কার্যক্রম শুরু হলে সহপাঠীদের সঙ্গে কথা বলে ভর্তিও হয়েছে।

রও পড়ুন:

প্রেমের স্বীকৃতি না পেয়ে প্রেট্রোল ঢেলে আগুন দিলেন নারী!

বেড়াতে গিয়ে অতিরিক্ত মদ পানে দুই ছাত্রলীগ কর্মীর মৃত্যু

শুক্রবার রাজধানীর যেসব মার্কেট ও দর্শনীয় স্থান বন্ধ থাকবে

মাদাগাস্কারে গরু চুরি নিয়ে সংঘর্ষে ৪৬ জন নিহত


এদিকে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে ইমরুলের টাইমলাইনে কয়েক দিন ধরে হতাশা আর আত্মহত্যা নিয়ে পোস্ট করতে দেখা যাচ্ছিল। ব্যর্থতা আত্মহত্যার মূল এবং পরিচিত কয়েকজনের সঙ্গে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছবি পোস্ট করছিলেন। সেই ছবিতেও হতাশামূলক ক্যাপশন দিতে দেখা গেছে। 

এ বিষয়ে জানতে যশোরের ঝিকরগাছা থানায় একাধিকবার ফোন করেও কথা বলা সম্ভব হয়নি।

news24bd.tv/ নকিব

পরবর্তী খবর

গুলশান লেকে ভেসে উঠলো নিখোঁজ তরুণীর মরদেহ

অনলাইন ডেস্ক

গুলশান লেকে ভেসে উঠলো নিখোঁজ তরুণীর মরদেহ

রাজধানীর গুলশান লেকে নৌকাডুবির ঘটনায় সেলিনা আক্তার নামে এক তরুণীর মৃত্যু হয়েছে। নিখোঁজের প্রায় ১৩ ঘণ্টা পর লেকের পানিতে ভেসে উঠলে সেলিনা আক্তারের লাশ উদ্ধার করা হয়। 

বৃহস্পতিবার (২৩ সেপ্টেম্বর) সকালে যাত্রীবাহী নৌকাটি গুলশান লেকে ডুবে যায়। এই ঘটনার পর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল সেলিনাকে উদ্ধারের চেষ্টা চালায় ফায়ার সার্ভিস। এরপর সন্ধান না পেয়ে উদ্ধার কাজ স্থগিত রাখে ফায়ার সার্ভিস। পরে রাত ১০টার দিকে লেকের পানিতে ওই তরুণীর লাশ ভেসে ওঠে। 

সেলানা বনানীর একটি ডায়াগনস্টিক সেন্টারের কর্মী ছিলেন। সকালে তিনি কর্মস্থলে যাচ্ছিলেন। 

স্থানীয় এলাকাবাসী ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, কড়াইল বস্তির পূর্ব পাশের ঘাট থেকে বৃহস্পতিবার সকালে ১৪ জন যাত্রী নিয়ে নৌকাটি গুলশান-১ ও ২–এর মাঝামাঝি ৩৩ নম্বর রোডের ঘাটে যাচ্ছিল। লেকের মাঝামাঝি নৌকাটি ডুবে যায়। নৌকাটি ডুবে যাওয়ার সময় মাঝিসহ বাকিরা সাঁতরে পাড়ে উঠলেও সেলিনা উঠতে পারেননি।

রও পড়ুন:

প্রেমের স্বীকৃতি না পেয়ে প্রেট্রোল ঢেলে আগুন দিলেন নারী!

বেড়াতে গিয়ে অতিরিক্ত মদ পানে দুই ছাত্রলীগ কর্মীর মৃত্যু

শুক্রবার রাজধানীর যেসব মার্কেট ও দর্শনীয় স্থান বন্ধ থাকবে

মাদাগাস্কারে গরু চুরি নিয়ে সংঘর্ষে ৪৬ জন নিহত


ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স অধিদপ্তরের নিয়ন্ত্রণ কক্ষের কর্তব্যরত কর্মকর্তা দেওয়ান আজাদ গণমাধ্যমকে জানান, নৌকাডুবির খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল ঘটনাস্থলে পৌঁছে সন্ধ্যা পর্যন্ত নিখোঁজ তরুণীকে উদ্ধারের চেষ্টায় তল্লাশি চালায়। কিন্তু ওই তরুণীর সন্ধান পায়নি তারা। শুক্রবার সকাল থেকে আবার তল্লাশি শুরু হওয়ার কথা ছিল বলেও জানান এই কর্মকর্তা।

গুলশান থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. আমিনুল ইসলাম বলেন, নিখোঁজ সেলিনা কড়াইল বস্তিতে থাকতেন। পুলিশের পক্ষ থেকে ওই ঘাটে ছোট নৌকায় ঝুঁকি নিয়ে লেক পারাপারে বাধা দেওয়া হতো। কিন্তু আজ (বৃহস্পতিবার) পুলিশের চোখ ফাঁকি দিয়ে নৌকাটি যাত্রী নিয়ে ছেড়ে আসে। 

news24bd.tv/ নকিব

পরবর্তী খবর

ডাকাতের হামলা, ট্রেনের ছাদ থেকে দুই লাশ উদ্ধার

অনলাইন ডেস্ক

ডাকাতের হামলা, ট্রেনের ছাদ থেকে দুই লাশ উদ্ধার

ঢাকা-জামালপুর কমিউটার ট্রেনে ডাকাতের হামলায় দুজন নিহত ও একজন গুরুতর আহত হয়েছেন। বৃহস্পতিবার রাত ১০টার পর দেওয়ানগঞ্জগামী ট্রেনটি জামালপুর পৌঁছালে ছাদে রক্তাক্ত অবস্থায় তিন জনকে উদ্ধার করে জামালপুর জিআরপি থানা পুলিশ।

নিহতদের মধ্যে একজনের পরিচয় জানা গেছে। তিনি হলেন জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জ উপজেলার মিতালী এলাকার মো. ওয়াহিদের ছেলে মো. নাহিদ (৪০)। নিহত অন্য পুরুষ ব্যক্তির বয়স আনুমানিক ৪০ বছর। লাশ দুটি জামালপুর সদর হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে। আহত রুবেল (২২) ইসলামপুর উপজেলার মাঝপাড়া গ্রামের হীরু মিয়ার ছেলে।

ঘটনার বিবরণ দিয়ে রুবেল সাংবাদিকদের বলেন, গফরগাঁও রেলওয়ে স্টেশন থেকে পাঁচজনের একটি যুবক দল ট্রেনের ছাদে ওঠে। এক পর্যায়ে তারা দুই ব্যক্তির মুঠোফোন ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করে। বাধা দিলে দুর্বৃত্তরা ওই দুজনকে ছুরিকাঘাত করে। পরে ওই পাঁচ দুর্বৃত্ত ময়মনসিংহ রেলওয়ে স্টেশনে নেমে যায়।

রেলওয়ে পুলিশের সার্কেল ইন্সপেক্টর (ময়মনসিংহ) গুলজার হোসেন সংবাদমাধ্যমকে বলেন, ট্রেনটি জামালপুরে এলে ছাদ থেকে রক্ত পড়তে দেখে ভেতরে থাকা কয়েকজন যাত্রী পুলিশ এবং গার্ডকে জানায়। এরপর ছাদে উঠে তিনজনকে রক্তাক্ত অবস্থায় পেয়ে জামালপুর সদর হাসপাতালে নিলে দুজনকে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসক।

রও পড়ুন:

প্রেমের স্বীকৃতি না পেয়ে প্রেট্রোল ঢেলে আগুন দিলেন নারী!

বেড়াতে গিয়ে অতিরিক্ত মদ পানে দুই ছাত্রলীগ কর্মীর মৃত্যু

আর কোনো তত্ত্বাবধায়ক সরকার হবে না, জানালেন কৃষিমন্ত্রী

সংসার ভাঙার খুশিতে ডিভোর্স পার্টি!


কমলাপুর থেকে ট্রেনের ছাদে ওঠা ফারুক নামের এক যাত্রী জামালপুরে সাংবাদিকদের বলেন, গফরগাঁও রেলস্টেশন ছাড়ার পর ট্রেনের ছাদের যাত্রীরা ডাকাত দলের কবলে পড়েন। চার-পাঁচ জনের ডাকাত দলটি নাহিদসহ (পরে নিহত) অনেক যাত্রীর কাছ থেকে মানিব্যাগ ও মোবাইল ফোন নিয়ে ট্রেনের ইঞ্জিনের দিকে চলে যায়।

news24bd.tv/ নকিব

পরবর্তী খবর

নোয়াখালীতে অস্ত্র-গুলিসহ কিশোর গ্যাং সদস্য গ্রেপ্তার

নোয়াখালী প্রতিনিধি :

নোয়াখালীতে অস্ত্র-গুলিসহ কিশোর গ্যাং সদস্য গ্রেপ্তার

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ উপজেলা থেকে অস্ত্রসহ কিশোর গ্যাং এর এক যুবককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এ সময় তার কাছ থেকে ১টি পাইপ গান, ১ রাউন্ড কার্তুজ, ৯টি কিরিস উদ্ধার করা হয়।

গ্রেপ্তারকৃত নুর উদ্দিন ওরফে আসিফ উপজেলার মুরাদপুর গ্রামের গোলাম মাওলার ছেলে।

বৃহস্পতিবার (২৩ সেপ্টেম্বর) দুপুরে আটককৃত আসামিকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে নোয়াখালী ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে। 

রও পড়ুন:


সেই বাংলা ছবি থেকে সানি লিওনের অংশটি বাদ

অনলাইনে পণ্য ডেলিভারির সময় নির্ধারণ করে দিলো মন্ত্রণালয়

ভ্রুন নষ্ট না করলে তালাক দেয়ার হুমকি স্বামীর

মানবতাবিরোধী মামলার আসামি শহীদুল্লাহ ফকির গ্রেপ্তার


এর আগে বুধবার গভীর রাতে উপজেলার শরীফপুর ইউনিয়নের দক্ষিণ খানপুর গ্রাম থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

বেগমগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুহাম্মদ কামরুজ্জামান সিকদার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন। তিনি আরও জানান, এ ঘটনায় আটককৃত আসামির বিরুদ্ধে অস্ত্র আইনে মামলা হয়েছে। 

NEWS24.TV / কামরুল

পরবর্তী খবর

ভ্রুন নষ্ট না করলে তালাক দেয়ার হুমকি স্বামীর

নয়ন বড়ুয়া জয়

স্বামীর চাপাচাপিতে ভ্রুণ হত্যার প্রবণতা বাড়ছে। মাতৃত্বের স্বাদ থেকে বঞ্চিত হচ্ছে অসংখ্য নারী। চট্টগ্রামে একের পর এক ভ্রন হত্যার শিকার হয়ে এবার মাতৃত্বের অধিকার রক্ষা করতে এক প্রবাসী স্বামীসহ পরিবারের বিরুদ্ধে স্ত্রীর মামলা। ভ্রুন নষ্ট না করলে তালাক দেয়ার হুমকি স্বামীর।

আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে পুলিশকে দ্রুত তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন বিচারক। নাগরিক সমাজের প্রতিনিধিরা বলছেন, আইনের প্রয়োগ সঠিকভাবে হলেই কমে আসবে ভ্রণ হত্যা। 

২০১৬ সালে রাঙ্গুনিয়ার খামারিপাড়া হোসনাবাদ এলাকার কাজী সফিউল আলমের সঙ্গে পারিবারিক পছন্দেই বিয়ে হয় উত্তর পদুয়া পশ্চিম খুরুশিয়ার সাজু আক্তারের। বিয়ের কিছু দিন পরই জানা যায় স্বামীর সঙ্গে পাশের গ্রামের এক নারীর প্রেমের সম্পর্ক রয়েছে। বিয়ের এক মাস পরে বিদেশ পাড়ি দেন স্বামী। 

রও পড়ুন:


জন্মদিনে সৃজিতের কাছে কী চাইলেন মিথিলা?

বায়ু দূষণের তালিকায় বাংলাদেশ প্রথম, ঢাকা তৃতীয়

৪৫ মিনিট পর হাসপাতালে অলৌকিকভাবে বেঁচে উঠলেন নারী!

গাড়ি সাইড দেয়ায় ব্যবসায়ীকে মারধর করলেন এমপি রিমন!


বিদেশ থেকে আসা-যাওয়ার মাঝে স্ত্রী সাজু সন্তান সম্ভবা হয়ে পড়লে  ভ্রুণ হত্যা করার জন্য উঠে পড়ে লাগে স্বামী। পরিবারের চাপে একের পর এক এভাবে ভ্রুণ নষ্ট করার পর এবার স্বামী বিদেশ থেকে আসলে আবারো এই গৃহবধুর পেটে সন্কান আসে। বয়স চারমাস হতেই স্বামী বুঝে যাওয়ায় শুরু হয় ভ্রুণ হত্যার চেষ্টা।

ভ্রুণ নষ্ট না করলে বিদেশে গিয়ে তালাক দেয়ার হুমকি দেয় স্বামী।তাই শেষমেষ আদালতের শরণাপন্ন হয়েছেন এই গৃহবধু।

নাগরিক সমাজের প্রতিনিধিরা বলছেন, ভ্রুণ হত্যা বন্ধে আইনের শাসন আরো কঠোর হওয়া জরুরি।

ভ্রুন হত্যায় জড়িতরা শাস্তির আওতায় না আসায় এখনো এটিকে অপরাধ মনে করেন না অনেকে। অন্তত এ মামালায় আইনের প্রয়োগ হলে একটি উদাহরণ তৈরি হবে বলছেন সমাজবিজ্ঞানীরা।

NEWS24.TV / কামরুল

পরবর্তী খবর