মত প্রকাশের স্বাধীনতার কী পরিস্থিতি হবে?
Breaking News
মত প্রকাশের স্বাধীনতার কী পরিস্থিতি হবে?

মত প্রকাশের স্বাধীনতার কী পরিস্থিতি হবে?

Other

প্রচারণার পুরোটা সময় এগিয়ে থাকার পরও শেষ পর্যন্ত নির্বাচনে জাস্টিন ট্রুডোর লিবারেল পার্টির কাছে হেরে যাওয়ার ধাক্কাটা সামলানো এরিন ও টুলের জন্য সহজ ছিলো না। কিন্তু নির্বাচনের পর পরই দলের ভেতর বাহির থেকে এই পরাজয়ের জন্য এরিন ও  টুলের দিকে আঙুল তুলতে থাকে অনেকেই। তার নেতৃত্ব রিভিউরও দাবি ওঠে।

কনজারভেটিভ পার্টির নেতৃত্বে এরিন ও টুলের অবস্থানটা বেশ সংহত বলেই এসব দাবি প্রস্তাবনা পাশ কাটিয়ে গেছেন তিনি। এতে লাভের চেয়ে ক্ষতিই হয়েছে বেশি। দলের ভেতর এরিন ও টুল বিরোধী মনোভাব বরং বেড়েছে।

দলের ভেতরকার গুমোট পরিস্থির মধ্যেই সাসকাচুয়ানের সিনেটর ডেনিস ব্যাটারস প্রকাশে এরিন ও টুলের নেতৃত্ব চ্যালেঞ্জ করে বসেন। আগামী ৬ মাসের মধ্যে দলের নেতা এরিন ও টুলের নেতৃত্ব পর্যালোচনার পদক্ষেপ নেয়ার দাবিতে তিনি দলের মধ্যে স্বাক্ষর সংগ্রহ শুরু করেন। এই পর্যালোচনার লক্ষ্য হচ্ছে- এরিন ও টুল দলের নেতৃত্বে থাকতে পারবেন কী না- সে সম্পর্কে দলের তৃণমূল পর্যায়ের সমাতমত নেয়া।

এরিন ও টুল এই চ্যালেঞ্জকে একদমই মেনে নিতে পারেননি। সিনেটর ডেনিসকে কনজারভেটিভ পার্টির ককাস (সংসদীয় কমিটি) থেকে বের করে দেন। এরিন ও টুল বিবৃতি দিয়ে বলেছেন, কনজারভেটিভ পার্টির নেতা হিসেবে কোনো ব্যক্তি বিশেষের পুরো কনজারভেটিভ পার্টিকে হেয় করার কোনো চেষ্টাকেই বরদাশত করা হবে না।

সিনেটর ডেনিস টুইটারে এর জবাব দিয়ে বলেছেন, কনজারভেটিভ পার্টির সদস্যদের ‘ভয়েস’ দেয়ার চেষ্টার কারণে এরিন ও টুল আজ রাতে আমার কণ্ঠকে চেপে ধরতে চেয়েছেন। একজন দুর্বল নেতা যিনি কী না টেলিফোনে ভয়েজ ম্যাসেজ দিয়ে আমাকে বরখাস্ত করেন, তার ভয়ে আমি আমার কণ্ঠস্বরকে থামিয়ে দেবো না।

ডেনিসের সঙ্গে কনজারভেটিভ পার্টির আর কারা কারা প্রকাশ্যে এরিন ও টুলের বিরুদ্ধে অবস্থান নেবেন সেটা পরিষ্কার হতে সময় লাগবে। কিন্তু দলের ভেতর প্রতিদ্বন্ধি বা সমালোচককে দল থেকে বের করে দিয়ে এরিন ও টুল অবশ্যই একটি বাজে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। পশ্চিমারা পূর্বের বিভিন্ন দেশে গিয়ে যে গণতন্ত্রর সবক দেয়ার চেষ্টা করেন কানাডীয়ান কনজারভেটিভ পার্টির নেতা নিজেই সেই গণতন্ত্রের চর্চার চেষ্টাকে  শক্তি প্রয়োগ করে থামিয়ে দিয়েছেন।

এরিন ও টুল দলের ভেতর ভিন্নমতকে সহ্য করছেন না। তিনি প্রধানমন্ত্রী হলে, কনজারভেটিভ পার্টি ক্ষমতায় গেলে কানাডীয়ানদের ভিন্নমতের, মত প্রকাশের স্বাধীনতার কী পরিস্থিতি হবে!

আরও পড়ুন


দেশেই হবে ভ্যাকসিন ইনস্টিটিউট: প্রধানমন্ত্রী

news24bd.tv এসএম