যে কারণে বিয়ের কয়েক ঘন্টা পরেই বিচ্ছেদ!

অনলাইন ডেস্ক

যে কারণে বিয়ের কয়েক ঘন্টা পরেই বিচ্ছেদ!

বিয়ের সকল আয়োজন শেষ। এক লাখ টাকা দেনমোহরে রেজিস্ট্র বিয়েও সম্পন্ন। অনুষ্ঠানে খাওয়া-দাওয়া শেষ করে এবার কনে তুলে দেওয়ার পালা। ঠিক এই সময়ে ঘটল বিবাধ। তাও আবার বিয়ের অনুষ্ঠানে পাওয়া উপহার নিয়ে। 

বর ও কনেপক্ষ অনুষ্ঠানে পাওয়া উপহার ভাগাভাগি নিয়ে এ দ্বন্দ্বে জড়িয়ে পড়ে। ফলাফল একই আসরে বিবাহ বিচ্ছেদ। শুক্রবার (১৮ ডিসেম্বর) রাতে রাজশাহীর বাগমারায় এই ঘটনা ঘটে।

শুক্রবার দুপুরে উপজেলার তেলিপুকুর গাঙ্গোপাড়া গ্রামের মহসিন আলীর (২৮) সঙ্গে উপজেলার ইসমাইলপুর গ্রামের জেসমিন আক্তারের (২৩) বিয়ে হয়। একলাখ টাকা দেনমোহরে বিয়ে রেজিস্ট্রি করেন নিকাহ রেজিস্ট্রার আক্কাছ আলী।


এবার কে হবেন হেফাজত মহাসচিব! আলোচনায় মামুনুলও

দুর্গম পাহাড় থেকে যেভাবে উদ্ধার হল ৪ যুবক

রাস্তায় মা হলেন পাগলী, পুলিশের ফোনেও এলো না অ্যাম্বুলেন্স!

শোকজ নোটিশের জবাব দিয়ে যা বললেন মেজর (অব.) হাফিজ


বিয়ের উপহারসামগ্রীর বণ্টন নিয়ে প্রথমে মনোমালিন্য ও পরে ঝগড়া চূড়ান্ত পর্যায়ে পৌঁছায়। গভীর রাত পর্যন্ত চলে এ অবস্থা।  বিষয়টি স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাদের মাধ্যমে থানা পর্যন্ত গড়ায়। পরে উভয়পক্ষের সমঝোতার মাধ্যমে বর-কনের বিবাহবিচ্ছেদ হয়ে যায়।

কনের পরিবারের অভিযোগ, উপহারসামগ্রী নিয়ে যে শর্ত ছিল, বিয়ের আসরে তা পালন করেনি বরপক্ষ। এতে এলাকার কয়েকজন ক্ষোভ প্রকাশ করেন। বরের প্রতিবেশী ও সাবেক ইউপি সদস্য আজাহার আলী বলেন, উভয় পক্ষের উচিত ছিল শান্ত হওয়া। এমন ঘটনা কাম্য নয়।

নিকাহ রেজিস্ট্রার আক্কাছ বলেন, ‘দুই পরিবারের সম্মতিতেই বিয়ে হয়েছিল। কিন্তু বর ও কনেপক্ষের মনোমালিন্যের কারণে বিয়ে বিচ্ছেদ ঘটেছে। বিচ্ছেদও হয়েছে দুই পক্ষের সম্মতিতে।’

বাগমারা থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আফজাল হোসেন বলেন, বিষয়টি জানতে পেরেছি। উভয়পক্ষের মধ্যে সমঝোতার মাধ্যমে বিবাহ বিচ্ছেদ হয়েছে।

নিউজ টোয়েন্টিফোর / কামরুল

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

গভীর রাতে পাহাড়ে বিকল পর্যটকবাহী গাড়ি, ৯৯৯ এ ফোনে উদ্ধার

নিজস্ব প্রতিবেদক

গভীর রাতে পাহাড়ে বিকল পর্যটকবাহী গাড়ি, ৯৯৯ এ ফোনে উদ্ধার

পার্বত্য বান্দরবান থেকে গভীর রাতে জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯ নম্বরে বিকল বাসের এক যাত্রীর ফোন কলে তাদেরকে সারারাত নিরাপত্তা দিয়ে বাস মেরামতের ব্যবস্থা করে দিয়েছে বান্দরবান সদর থানাধীন দুলুপাড়া চেকপোস্ট ক্যাম্পের পুলিশ। 

আজ বৃহস্পতিবার (৪ মার্চ) রাত দেড়টায় মশিউর রহমান নামে একজন পর্যটক বান্দরবান থেকে ফোন করে জানান, তিনি পেশায় একজন ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী। এক মহিলা ও শিশু সহ তারা ৪০ জন পর্যটক যশোর থেকে রিজার্ভ বাস যোগে বান্দরবান বেড়াতে এসেছিলেন। 

বান্দরবান সদর থেকে ১০/১২ কিমিঃ দূরত্বে বান্দরবান রাঙামাটি সংযোগ সড়কের একটি স্থানে তাদের বাসটি বিকল হয়ে গেছে প্রায় ঘন্টা খানেক আগে। বাসের ড্রাইভার এবং হেল্পার অনেক চেষ্টা করেও বাসটি সচল করতে পারেননি। তিনি ভয়ার্ত কন্ঠে জানান ৭/৮ জন উপজাতি লোক কাছে এসে তাদের অবস্থা দেখে গেছে এখন কিছুটা দূরে দাঁড়িয়ে নিজেদের মধ্যে কথা বলাবলি করছে। 


আমাকে ‘বলির পাঁঠা’ বানানো হয়েছে: সামিয়া রহমান

প্রথমবারের মতো দেশে পালিত হচ্ছে টাকা দিবস

ইয়ার্ড সেলে মিললো ৪ কোটি টাকার মূল্যবান চীনামাটির পাত্র!

এই নচিকেতা মানে কী? আমি তোমার ছোট? : মঞ্চে ভক্তকে নচিকেতার ধমক (ভিডিও)


কলার জানান এই গভীর  রাতে বিজন পাহাড়ী এলাকায় তারা চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। কোন উপায় না পেয়ে তিনি ৯৯৯ এ ফোন করেন। কলার এ অবস্থা থেকে তাদের উদ্ধারের ব্যবস্থা নেয়ার জন্য ৯৯৯ কাছে অনুরোধ জানান। 

৯৯৯ তাৎক্ষনিকভাবে কলারের সাথে বান্দরবান সদর থানার ডিউটি অফিসারের কথা বলিয়ে দেয়। ৯৯৯ থেকে সংবাদ পেয়ে দুলুপাড়া চেকপোস্ট থেকে একটি পুলিশ দল ঘটনাস্থলে যায়। পরে দুলুপাড়া চেকপোস্টের এ এস আই অংকোলা মার্মা ৯৯৯ কে ফোনে জানান তারা ঘটনাস্থলে গিয়ে বিকল বাসের পর্যটকদেরকে ঘটনাস্থলের কাছে একটি মসজিদে নিয়ে যান এবং তাদেরকে নিরাপত্তা দেন। পরে সকাল হলে বাসের ড্রাইভার ও হেলপারকে বাসের বিকল যন্ত্রাংশ খুলে নিয়ে সদরে পাঠানোর ব্যবস্থা করেন। যন্ত্রাংশ মেরামত করে নিয়ে আসার পর বাসটি সচল হয়ে পর্যটকদের নিয়ে বান্দরবান সদরে ফিরে গেছে।

৪ মার্চ সকালে ৯৯৯ থেকে কলার পর্যটককে ফোন করা হলে তিনি বিষয়টি নিশ্চিত করেন এবং ৯৯৯ এর প্রতি ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান। 

news24bd.tv / কামরুল 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

শিবচরে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ

মাদারীপুর প্রতিনিধি:

শিবচরে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ

মাদারীপুরের শিবচর উপজেলার বাঁশকান্দি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবুল বাশারের বিরুদ্ধে অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ পাওয়া গেছে। সম্প্রতি জেলা প্রশাসক ও স্থানীয় সরকার বিভাগে চেয়ারম্যানের নানা অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ করেছেন এলাকাবাসী। এ ঘটনায় তদন্ত শুরু করেছে স্থানীয় সরকার বিভাগ।

লিখিত অভিযোগ থেকে জানা যায়, ইউপি চেয়ারমান বাশার স্কুলের প্রধান শিক্ষক হয়ে নিজ বিদ্যালয়ের নামে বরাদ্দকৃত স্কুল ভবনের ঠিকাদারি কাজ নিজেই সম্পূর্ণ করেন। এছাড়া তার বিরুদ্ধে রয়েছে নানাবিধ দুর্নীতির অভিযোগ। বাশার নিজেই চেয়ারম্যান হওয়ার সুবাদে নিজ স্কুলের নামে ইউনিয়ন পরিষদ থেকে একাধিক বরাদ্দ দিয়েছেন। ইউপি ভবন নির্মাণ ও সংস্কার নামে একাধিক বরাদ্দ নিয়ে সরকারের লাখ লাখ টাকা আত্মসাৎ করেছেন।

তার নিজ এলাকার ৪ নম্বর ওয়ার্ড সদস্য জামালের বাড়ি, ছলেনামা পাকা রাস্তা থেকে বাড়ি পর্যন্ত সড়ক ও উত্তর বাশকান্দি এলাকার একটি রাস্তা সংস্কারের বরাদ্দ এনে কয়েক লাখ টাকা আত্মসাৎ করেছেন। শুধু নিজ এলাকায় বাড়ির রাস্তা নয়, মসজিদের বিভিন্ন কাজের জন্য বারবার বরাদ্দ নিয়ে সরকারের লাখ লাখ টাকা আত্মসাৎ করেছেন এই ইউপি চেয়ারম্যান।
অভিযোগে আরও বলা হয়, চেয়ারম্যান হওয়ার আগে তিনি ২০ শতক জমির মালিক ছিলেন।

কিন্তু এখন তার রয়েছে অনেক জমিজমা ও অর্থ। তিনি শেখপুর বাজারে জলিল ঢালীর কাছ থেকৈ দোতলা একটি ভবন ক্রয় করে ৩ তলায় উন্নত করেছেন। এছাড়াও শিবচর উপজেলায় দাদাভাই উপশহরের একাধিক প্লট কিনেছেন। 


পাপুলের আসনে উপনির্বাচনের তারিখ ঘোষণা

বিক্রি হওয়া সেই শিশু ফিরে পেলেন মা

হারিয়ে যাচ্ছে গ্রামীণ সৌন্দর্য

১২ তলা থেকে পড়েও বেঁচে আছেন তিন বছরের শিশু (ভিডিও)


সম্প্রতি তিনি রাজধানী ঢাকার বাসাবো এলাকায় একটি ফ্ল্যাটও কিনেছেন। প্রভাবশালী এই ইউপি চেয়ারম্যান এলাকায় প্রভাব খাটিয়ে নিজেই অন্যের নামে ঠিকাদারি লাইসেন্স করে শেখপুর বাজারের উন্নয়ন মার্কেট, ড্রেন ও রাস্তার একাধিক কাজ নিজেই সম্পন্ন করেন। এছাড়াও এডিবির বরাদ্দকৃত ২০ লাখ টাকা ব্যয়ে পুলিশ সদস্যদের থাকার জন্য ২টি কক্ষ নির্মাণ কাজ নিজেই করেছেন।

আবুল বাশার শুধু নিজেই দুর্নীতি করেননি, তার খালাতো ভাই মাসুম মোল্লা ও চাচাতো ভাই লিটু মুন্সিকে তিনি ব্যবহার করেছেন। তাদের দুজনের নামে প্রাধানমন্ত্রীর খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির ডিলারও এনে দিয়েছেন ইউপি চেয়ারম্যান আবুল বাশার। মাসুম সেই কর্মসূচির চালের ৬৮ বস্তা অন্যত্র বিক্রির সময় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর হাতে আটক হয়। আর লিটু মুন্সির বিরুদ্ধে চাল দেওয়ার অনিয়মের অভিযোগে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) ফরিদপুর আঞ্চলিক কার্যালয়ে তদন্তধীন আছে।

অভিযোগ আছে, আবুল বাসার নিজ বিদ্যালয়ে বসেই ইউনিয়ন পরিষদের কার্যক্রম সম্পাদন করেন। এতে স্কুলের শিক্ষার্থীদের পড়াশোনায় ব্যাঘাত ঘটে। এছাড়া তিনি গরিব ভ্যানচালকদের কাছ থেকে জনপ্রতি ৪০০ টাকা করে উত্তোলন করে লাইসেন্সের নামে। এ ব্যাপারেও মাদারীপুর জেলা প্রশাসক ড. রহিমা খাতুনের কাছে এলাকাবাসী একটি অভিযোগপত্র দিয়েছেন।

অভিযোগের ব্যাপারে জানতে চাইলে ইউপি চেয়ারম্যান আবুল বাশার বলেন, আমি একটি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক, এটি সত্যি। আমি চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার আগে ২০১৩ সাল থেকে আমি স্কুলের প্রধান শিক্ষক। আমি স্কুল থেকে বেতন নেই। কিন্তু পরিষদ থেকে কোনো সম্মানি নেই না। তাছাড়া আমার বিরুদ্ধে যে অনিয়ম ও দুর্নীতির কথা বলা হচ্ছে তা সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন। সামনে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন তাই প্রতিপক্ষ আমার নামে মিথ্যে কথা সাজিয়ে ডিসির কাছে অভিযোগ দিয়েছেন। এর সঙ্গে আমার কোনো সত্যতা নেই।

এ ব্যাপারে মাদারীপুর স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক মো. আজাহারুল ইসলাম বলেন, ‘আমরা ইউপি চেয়ারম্যান আবুল আশারের বিরুদ্ধে নানা অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগের কথা উল্লেখ করে একটি লিখিত অভিযোগ হাতে পেয়েছি। বিষয়টি আমলে নিয়ে আমরা তার বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু করেছি। তিনি যদি দুর্নীতি ও অনিয়মের সাথে জড়িত হন, তাহলে তার বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

news24bd.tv / কামরুল 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

খুলনায় পুলিশের দুই এসআই ক্লোজ

নিজস্ব প্রতিবেদক, খুলনা

খুলনায় পুলিশের দুই এসআই ক্লোজ

খুলনায় আওয়ামী লীগের প্রতিবাদ সমাবেশে লাঠিচার্জ করার ঘটনায় সদর থানা পুলিশের দুই উপ-পরিদর্শককে (এসআই) কেএমপিতে ক্লোজ করা হয়েছে। বুধবার রাতে খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশের ডেপুটি কমিশনার (দক্ষিণ) মো. আনোয়ার হোসেন এ তথ্য নিশ্চিত করেন। ওই দুই এসআই হচ্ছেন- মোমিনুর রহমান ও মিয়া রব।

জানা যায়, বুধবার বিকালে ২১নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের উদ্যোগে নগরীর কেডি ঘোষ রোডে বিএনপি অফিসের সামনে কেন্দ্রিয় ভাইস-চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদুর কুশপুত্তলিকা দাহ করার সময় এ ঘটনা ঘটে। এ সময় আওয়ামী লীগ কর্মী ও পুলিশের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া হয়। 


পাপুলের আসনে উপনির্বাচনের তারিখ ঘোষণা

বিক্রি হওয়া সেই শিশু ফিরে পেলেন মা

হারিয়ে যাচ্ছে গ্রামীণ সৌন্দর্য

১২ তলা থেকে পড়েও বেঁচে আছেন তিন বছরের শিশু (ভিডিও)


২১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. শামছুজ্জামান মিয়া স্বপন বলেন, গত শনিবার বিএনপির সমাবেশে শামসুজ্জামান দুদু তার বক্তৃতায় আওয়ামী লীগ, সিটি মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক ও পুলিশকে নিয়ে অশালীন উক্তি করেন। এ ঘটনায় ২১নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের উদ্যোগে বিএনপির ওই নেতার কুশপুত্তলিকা দাহ করার কথা ছিল সোসাইটি সিনেমা হলের সামনে। কিন্তু কেডি ঘোষ রোড দিয়ে যাওয়ার সময় যানজটের কারণে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা সেখানে অবস্থান নিয়ে বক্তৃতা করেন ও কুশপুত্তলিকা দাহ করা হয়। এ সময় পুলিশের একটি টিম সেখানে এসে লাঠিচার্জ শুরু করে। পুলিশের সাথে ভুল বোঝাবুঝি থেকে অপ্রীতিকর এ ঘটনা ঘটে। 

তিনি বলেন, ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার সাথে কথা বলে অনুমতি নেন কর্মসুচী পালনের জন্য। তারপরও ওইস্থানে পুলিশ নেতাকর্মীদের ওপর লাঠিচার্জ করে। পরে অবশ্য এটি ভুল হয়েছে বলে দুঃখ প্রকাশ করে পুলিশের উর্ধর্তন কর্মকর্তারা। 

news24bd.tv / কামরুল 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

খুলনায় বিএনপি অফিসের সামনে দুদু’র কুশপুত্তলিকা দাহ, উত্তেজনা

সামছুজ্জামান শাহীন, খুলনা

খুলনায় বিএনপি অফিসের সামনে দুদু’র কুশপুত্তলিকা দাহ, উত্তেজনা

খুলনায় বিএনপি অফিসের সামনে দলের কেন্দ্রিয় ভাইস-চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদুর কুশপুত্তলিকা দাহ করা হয়েছে। বুধবার বিকেলে স্থানীয় ২১নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের উদ্যোগে প্রতিবাদ মিছিল থেকে বিএনপির মহানগর ও জেলা অফিসের সামনে কুশপুত্তলিকা দাহ করা হয়।

এদিকে এ নিয়ে উত্তেজনা দেখা দিলে খুলনা সদর থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের ওপর লাঠিচার্জ করে। এ সময় দুপক্ষের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া হয়।


সবইতো চলছে, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান কেন ঈদের পরে খুলবে: নুর

আইন চলে ক্ষমতাসীনদের ইচ্ছেমত: ভিপি নুর

রাঙামাটিতে বিজিবি-বিএসএফের পতাকা বৈঠক

৭৫০ মে.টন কয়লা নিয়ে জাহাজ ডুবি, শুরু হয়নি উদ্ধার কাজ


২১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. শামছুজ্জামান মিয়া স্বপন বলেন, ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের উদ্যোগে কুশপুত্তলিকা দাহ করার কথা ছিল সোসাইটি সিনেমা হলের সামনে। কিন্তু কেডি ঘোষ রোড দিয়ে যাওয়ার সময় সেখানে যানজটের কারণে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা সেখানে অবস্থান নিয়ে বক্তৃতা করেন ও পরে কুশপুত্তলিকা দাহ করা হয়। এসময় পুলিশের একটি টিম সেখানে এসে লাঠিচার্জ শুরু করে।

তিনি বলেন, যে পুলিশ কর্মকর্তা লাঠিচার্জ করেছে, তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানানো হয়েছে।

এদিকে খবর পেয়ে বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের নেতারা অফিসের সামনে জড়ো হয়। তারা বিএনপি অফিসের সামনে অগ্নিসংযোগের প্রতিবাদে তাৎক্ষণিক মিছিল বের করে।

জানা যায়, খুলনায় গত শনিবার বিএনপির সমাবেশে শামসুজ্জামান দুদু তার বক্তৃতায় আওয়ামী লীগ, সিটি মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক ও পুলিশকে নিয়ে অশালীন উক্তি করেন। এরপর থেকে দুদু’র এ বক্তব্যের প্রতিবাদ জানাচ্ছে আওয়ামী লীগ।

news24bd.tv তৌহিদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

জিয়া রাজাকার-আলবদরদের বিচার বন্ধ করেছিলেন: চীফ হুইপ

বেলাল রিজভী, মাদারীপুর

জিয়া রাজাকার-আলবদরদের বিচার বন্ধ করেছিলেন: চীফ হুইপ

জাতীয় সংসদের চীফ হুইপ ও আওয়ামী লীগ সংসদীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক নূর-ই-আলম চৌধুরী বলেছেন, বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমান ক্ষমতায় আসার পর রাজাকার, আলবদরদের বিচার বন্ধ করে দিয়েছিলেন।

তিনি বলেন, হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যার পর জিয়াউর রহমান এদেশে যুদ্ধাপরাধী ও স্বাধীনতা বিরোধীদের প্রতিষ্ঠিত করেছে। জিয়া ক্ষমতায় আসার পর রাজাকার আলবদরদের বিচার বন্ধ করে দিয়েছিলেন। শুধু তাই নয় কারাগারে আটক সকল যুদ্ধাপরাধীদের মুক্ত করে দিয়েছিলেন এবং নরঘাতক যুদ্ধাপরাধী গোলাম আজমকে এদেশে রাজনীতি করার সুযোগ করে দিয়েছিলেন।

বুধবার (৩ মার্চ) দুপুরে মাদারীপুরের শিবচর উপজেলায় এক অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তিনি। শিবচরের মুন্সী কাদিরপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের ৪তলা বিশিষ্ট নতুন ভবন উদ্বোধন করেন তিনি। পরে সেখানে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে এক মতবিনিময় সভায় অনুষ্ঠিত হয়। 

মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি বলেন, জিয়া সংবিধান সংশোধন করে ধর্মভিত্তিক রাজনীতি নিষিদ্ধ থাকার বিধান বাতিল করেছিলেন। জামায়াত ইসলামীসহ স্বাধীনতা বিরোধীদের রাজনীতি করার সুযোগ করেছিলেন। পরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ক্ষমতায় আসার পর সকল যুদ্ধাপরাধীদের বিচার সম্পন্ন হচ্ছে। 

চীফ হুইপ আরো বলেন, দেশের মানুষের কথা চিন্তা করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১৩শ’ কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়েছেন করোনা ভাইরাসের ভ্যাকসিন প্রয়োগের জন্য। যা বিশ্বের উন্নত অনেক দেশে দেয়া সম্ভব হচ্ছে না। এখনো অনেক দেশ আছে যারা ভ্যাকসিন পায়নি। একমাত্র বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার কারণেই বাংলাদেশের ৪০ বছরের উর্ধ্বে সকলকে প্রাথমিক পর্যায়ে করোনা ভাইরাসের ভ্যাকসিন দেয়া হচ্ছে। ইতোমধ্যে ৩০ লাখ মানুষকে করোনার ভ্যাকসিন দেয়া হয়েছে।


পুলিশ হেফাজতে আইনজীবীর মৃত্যু: বিচার বিভাগীয় তদন্তের নির্দেশ

ভাসানচরে যাচ্ছে দুই হাজারের বেশি রোহিঙ্গা

‘অসম প্রেমে’ পড়েছেন সাদিয়া ইসলাম মৌ

ব্যানারে নেই বেগম জিয়া, এনিয়ে বিস্তর আলোচনা


এসময় তিনি সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলারও আহবান জানান।

অনুষ্ঠানে মাদারীপুর জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মুনির চৌধুরী, শিবচর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আসাদুজ্জামান, পৌর মেয়র আওলাদ হোসেন খান, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা শাজাহান মোল্লা, সাধারণ সম্পাদক ডা. মো. সেলিম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। 

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর