নৌপথে যাত্রী ও যানবাহনের প্রচণ্ড চাপ

অনলাইন ডেস্ক

নৌপথে যাত্রী ও যানবাহনের প্রচণ্ড চাপ

সরকারি বিধিনিষেধ শেষ হওয়ায় ঈদের আগেই রাজধানী ঢাকা ছাড়তে শুরু করেছে দক্ষিণাঞ্চলের ২১ জেলার মানুষ। এতে আজ বৃহস্পতিবার সকাল থেকে মুন্সিগঞ্জের শিমুলিয়া ও মাদারীপুরের বাংলাবাজার নৌপথে যাত্রী ও যানবাহনের প্রচণ্ড চাপ বেড়েছে। ফেরি ও লঞ্চে যাত্রীদের চাপ সামলাতে হিমশিম খেতে হয় দুই ঘাট কর্তৃপক্ষকে।

শিমুলিয়া ফেরিঘাট ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সামনে ঈদুল আজহা ও আগামীকাল সাপ্তাহিক ছুটির দিন। তাই সকাল থেকেই শিমুলিয়া ঘাট হয়ে দক্ষিণ অঞ্চলের দিকে যাত্রা করে ২১ জেলার মানুষ। গতকাল বুধবার রাত থেকেই এ ঘাটে চাপ বাড়তে থাকে। আজ সকালে ঘাটে হঠাৎ যানবাহনের চাপ কয়েক গুণ বেড়ে যায়।

আরও পড়ুন


ঝিনাইদহে করোনা ও উপসর্গ নিয়ে ৭ জনের মৃত্যু

১৬ জুলাই: কারারুদ্ধ শেখ হাসিনা ও অবরুদ্ধ গণতন্ত্র

করোনা যতোদিন থাকবে খাদ্য সহায়তা দেয়া হবে: হানিফ

অনলাইনে ট্রেনের টিকিট কাটার ভোগান্তি স্বাভাবিক: রেলমন্ত্রী


শিমুলিয়া-ভাঙা মোড় দিয়ে যাত্রী ও পরিবহনগুলো ঘাটের দিকে ছুটছে। ফেরিঘাটের প্রতিটি সংযোগ সড়কেই যানবাহনের সারি। পার্কিং ইয়ার্ড ও নৌপুলিশ মাঠেও যানবাহনের জটলা। লঞ্চ ও স্পিডবোট ঘাটে যাত্রী পারাপারে সরগরম। ফেরিঘাটে পারাপারের অপেক্ষায় ব্যক্তিগত গাড়ি, পরিবহন ও মালবাহী ট্রাক।

সকালের দিকে বাড়ির পথের যাত্রীরা বলেন,  বিধিনিষেধ শিথিল হয়েছে। সামনে ঈদ। সবাই বাড়িতে ফিরবে। তখন ভিড় আরও বাড়বে। তাই পরিবারের অন্য সদস্যদের নিয়ে যশোরে গ্রামের বাড়ি যাচ্ছেন তিনি।
জোসনা বেগম নামের এক নারী বলেন, তাঁর বোন অসুস্থ। বিধিনিষেধের আগে রাজধানীর রামপুরায় বোনকে দেখতে গিয়েছিলেন। যানবাহন ও নৌ চলাচল শুরু হয়েছে। তাই গ্রামের বাড়ি ফরিদপুর সদরে যাচ্ছেন তিনি।

news24bd.tv/এমিজান্নাত

 

পরবর্তী খবর

মহামারিতেও তৎপর জঙ্গিরা, অনলাইনে চলছে প্রচারণা

মৌ খন্দকার

মহামারিতেও তৎপর জঙ্গিরা, অনলাইনে চলছে প্রচারণা

করোনাকালে বসে নেই জঙ্গিরা, বরং চলছে অনলাইনে সদস্য সংগ্রহ। গোয়েন্দা তথ্য বলছে, জঙ্গিদের আবার পুনর্গঠিত হওয়ার চেষ্টা আছে, তারা বিভিন্ন অ্যাপে চ্যানেল খুলে প্রচারণা চালাচ্ছে। তবে সামনে আসার মতো শক্তি জঙ্গিদের নেই বলে মনে করেন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কর্মকর্তারা। তাদের কঠোর সাইবার পেট্রোলিংয়ের কারণে চূড়ান্ত পরিকল্পনার আগেই ধরা পড়ে যাচ্ছে তারা। 

বাংলাদেশের জঙ্গিগোষ্ঠীগুলো করোনাভাইরাসের এই সময়ে অনেকটাই আড়ালে চলে গিয়েছিল। কিন্তু থেমে থাকেনি। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সূত্রগুলো বলছে, এ সময়টাকে জঙ্গিরা কাজে লাগিয়েছে অনলাইনে সদস্য সংগ্রহের কাজে। সাধারণ ছুটির পর জঙ্গিগোষ্ঠীগুলোর মুখপাত্ররা বিভিন্ন গোপনীয়তা নিশ্চিত করা যায় যে অ্যাপগুলোয় চ্যানেল খুলে প্রচারণা চালাচ্ছে।

আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সূত্রগুলো বলছে, ভার্চ্যুয়াল যোগাযোগের একটা অংশ বিদেশ থেকে নিয়ন্ত্রিত হচ্ছে। তাঁরা নিজেদের তৈরি কনটেন্ট কিংবা বিদেশি ভাষা থেকে অনুবাদ করে বিভিন্ন কনটেন্ট আপলোড করছেন।

আরও পড়ুন:


করোনায় আক্রান্ত কনডেম সেলের ফাঁসির আসামি

টিকা নিলে কমে মৃত্যু ঝুঁকি: আইইডিসিআর

করোনা: কুষ্টিয়ায় একদিনে ৯ জনের মৃত্যু

অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার দ্বিতীয় ডোজ টিকা প্রয়োগ শুরু


 

র‌্যাব বলছে, ধারাবাহিক জঙ্গি বিরোধী অভিযানে জঙ্গিরা তাদের ক্ষমতা হারিয়েছে।

আগে যেভাবে একটা আস্তানা নিয়ে ট্রেনিং দিতো, আমির থাকতো, অপারেশন প্ল্যান ও অস্ত্র সংগ্রহ করতো, এখন সেই অবস্থায় নেই জঙ্গিরা।
এছাড়া র‌্যাব ফোর্সেসের সাইবার মনিটরিং টিমের পক্ষ থেকে তাদের নজরদারি বাড়ানোর কথাও জানান র‌্যাবের এই উর্ধ্বতন কর্মকর্তা।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

নামে কঠোর কিন্তু বাস্তবে ঢিলেঢালা লকডাউন

হাবিবুল ইসলাম হাবিব

নামে কঠোর লকডাউন কিন্তু বাস্তবে ঢিলেঢালা। রাজধানীর বেশীরভাগ সড়কে ব্যক্তিগত গাড়ির চাপ থাকলেও ছিল না কোন গণপরিবহন। তবে জরুরী প্রয়োজন মেটাতে রিক্সা ও মটরসাইকেল চলছে । সেক্ষেত্রে বাড়তি ভাড়া গুনতে হচ্ছে জরুরী প্রয়োজন মেটাতে বের হওয়া যাত্রীদের। আর সুনির্দৃষ্ট কারন ছাড়া বের হলেই জরিমানা করছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। তবে অসুস্থতা নিয়ে যারা বের হয়েছেন তাদের জন্য যানবাহন সংকট ছিলো বড় সমস্যা। 

লকডাউনের মাঝে গার্মেন্টস শিল্প চালু করfয় ঢাকা মুখি মানুষের যাত্রা এখনো চলছে। তবে গণপরিবহন বন্ধ থাকায় দীর্ঘ পথের বাহন হয়েছে মটর বাইক, অটো কিংবা রিক্সা ভ্যান। ফলে রাজধানীর সড়কগুলো ছিলো জনাকীর্ণ।

তবে পেটের দায়ে যারা বের হয়েছেন তারা পড়ছেন বিপাকে। রিক্সা চালকদের আক্ষেপ নেই পর্যাপ্ত যাত্রী।  নিজে কিংবা পরিবারের কোন সদস্য অসুস্থ্ হলে তাদের জন্য নেই পর্যাপ্ত যানবাহন।

আরও পড়ুন:


বিএনপি-জামায়াত-হেফাজত করোনার মতো বারবার রূপ পরিবর্তন করছে: বাহাউদ্দিন নাছিম

টিকা নেয়ার পরেও করোনা পজিটিভ ফারুকী

স্বামীর পর্নকাণ্ড: মানহানির মামলা নিয়ে শিল্পাকে আদালতের ভর্ৎসনা


 

ব্যক্তিগত গাড়ির চাপে কখনো কখনো জানযট তৈরী হতে দেখা গেছে নগরীর বিভিন্ন সড়কে। পুলিশ জানায় বেশীরভাগ গাড়ী জরুরী সেবায় নিয়োজিত। তবে বের হওয়ার যৌক্তিক কারন না দেখাতে পারলে তাকে জরিমানা করা হচ্ছে।

অবাধ বিচরন করোনা সংক্রমনের ঝুঁকি বাড়ালেও অনেকেই এর তোয়াক্কা করছেন না। তাই সংক্রমন এড়াতে স্বাস্থ্যবিধি মানার উপর জোর তাগিদ স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের। 

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

প্রতিদিনই বাড়ছে ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা

মাহমুদুল হাসান

রাজধানীতে প্রতিদিনই পাল্লা দিয়ে বাড়ছে ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা। গত ২৪ ঘন্টাতেই হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ২৮৭ জন। এডিস ও কিউলেক্স মশা দমনে দুই সিটি কর্পোরেশন বিশেষ অভিযান শুরু করলেও ফলাফল এখনও দৃশ্যমান হয়নি। ডেঙ্গুর বেশি ঝুকিতে রয়েছে শিশুরা, প্রতিদিনই আক্রান্ত শিশুদের হাসপাতালে ভর্তি করাচ্ছেন অভিভাবকরা।

ডেঙ্গুতে আক্রান্ত ৪ বছরের শিশুকে  নিয়ে হাসপাতালে এসেছেন বাড্ডা এলাকার বাসিন্দা বিউটি বেগম। বলছিলেন, তার বাড়ির আশেপাশে মশার উপদ্রপের কথা, অনেকেই আক্রান্ত হচ্ছে ডেঙ্গু জ্বরে। ৪ বছর বয়সী সন্তানের অবস্থা খারাপ হওয়াতে ভর্তি করাতে হয়েছে হাসপাতালে।

এমনি আরও ৩৬ টি শিশু ভর্তি হয়েছে রাজধানীর শেরেবাংলা নগরের শিশু হাসপাতালটিতে। হাসপাতালের আইসিউতে ভর্তি ৫ জন, এই মধ্যে ডেঙ্গুতে মারা গেছেন ৪ শিশু। শিশুদের নিয়ে উৎকন্ঠায়  রাজধানীর অভিভাবকরা।

আরও পড়ুন:


বিএনপি-জামায়াত-হেফাজত করোনার মতো বারবার রূপ পরিবর্তন করছে: বাহাউদ্দিন নাছিম

টিকা নেয়ার পরেও করোনা পজিটিভ ফারুকী

স্বামীর পর্নকাণ্ড: মানহানির মামলা নিয়ে শিল্পাকে আদালতের ভর্ৎসনা


করোনার মাঝে ক্রমেই ভয়াবহ হয়ে উঠছে ডেঙ্গু। চিকিৎসকরাও বলছেন, প্রতিদিনই বাড়ছে রোগীর চাপ।

পরিস্থিতি বিবেচনায় বিশেষ অভিযান শুরু করেছে দুই সিটি কর্পোরেশন। রাজধানীর মিরপুরে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের নিয়ে অভিযানে নামেন উত্তরের মেয়র। এ সময় ডেঙ্গু প্রবণ এলাকা চিহ্নিত করতে নগরবাসীর সহায়তা চান তিনি।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীকে পাকিস্তানের আম উপহার

অনলাইন ডেস্ক

রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীকে পাকিস্তানের আম উপহার

ফাইল ছবি

বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে আম উপহার হিসেবে পাঠিয়েছে পাকিস্তান। 

সোমবার ঢাকায় নিযুক্ত পাকিস্তান হাইকমিশন এ তথ্য জানিয়েছে।

পাকিস্তান হাইকমিশন জানায়, গত বছরের মতো এবারও পাকিস্তান সরকার বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী এবং অন্যান্য গণ্যমান্য ব্যক্তিদের জন্য উপহার হিসেবে তাজা পাকিস্তানি আম পাঠিয়েছে।

আরও পড়ুনঃ


দ. কোরিয়ার কোন গালিও দেয়া চলবে না উত্তর কোরিয়ায়

তালেবানের হাত থেকে ২৪ জেলা পুনরুদ্ধারের দাবি

কাছাকাছি আসা ঠেকাতে টোকিও অলিম্পিকে বিশেষ ব্যবস্থা


 

এর আগে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান‌কে শুভেচ্ছা উপহার হিসেবে ১ হাজার কে‌জি হা‌ড়িভাঙ্গা আম উপহার হিসেবে পাঠিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হা‌সিনা।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

আওয়ামী লীগের নাম ব্যবহার করে গড়ে উঠেছে ৭৩ সংগঠন

শাহ্ আলী জয়

আওয়ামী লীগের নাম ব্যবহার করে গড়ে উঠেছে ৭৩ সংগঠন

নামের আগে-পরে ‘লীগ’ ‘আওয়ামী’, ও ‘বঙ্গবন্ধু’ যুক্ত করে ২০০৯ সালের পর যেসব সংগঠন গড়ে উঠেছে, এর প্রায় সবই ভুঁইফোড় বলে মনে করছে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ। এসব সংগঠনের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নিতে যাচ্ছে সরকার। নীতিনির্ধারকদের পক্ষ থেকে গোয়েন্দা সংস্থাগুলোকে এ বিষয়ে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। ভুঁইফোড়  এসব সংগঠনের উদ্যোক্তাদের কর্মকাণ্ড ও সম্পদের খোঁজ নেওয়া হবে বলেও জানাচ্ছেন আওয়ামীলীগ নেতারা। 

টানা তৃতীয় মেয়াদে ক্ষমতায় দেশের ঐতিহ্যবাহী দল আওয়ামী লীগ। দীর্ঘ এই সময়ে সরকার সরকারের সফলতাকে পুঁজি করে দলের নাম ভাঙ্গিয়ে গড়ে উঠতে দেখা গেছে নাম সর্বস্ব বেশ কিছু সংগঠনও। যেসব সংগঠনের নামের আগে বা পরে যুক্ত করা হয়েছে আওয়ামী, লীগ, বঙ্গবন্ধু, বঙ্গমাতা ইত্যাদি শব্দ। এগুলোর  প্রায় সব কটিকেই ভূইফোঁর সংগঠন বলছে আওয়ামী লীগ। আর যারা এসবের হোতা তাদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থানে যাচ্ছে দল ও সরকার।

চাকরীজীবি লীগ নামে এমনই এক ভূই ফোঁর সংগঠন গড়ে তাতে পদ বাণিজ্যের অভিযোগে সম্প্রতি ব্যবসায়ী হেলেনা জাহাঙ্গীরকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব।  আওয়ামী লীগের নীতি নির্ধারকরা বলছেন এর মাধ্যমে ভুঁইফোড় সংগঠনের বিরুদ্ধে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর তৎপরতা শুরু হলো।

আওয়ামী লীগ সূত্র বলছে আওয়ামী লীগের নাম ভাঙ্গিয়ে গড়ে ওঠা এমন ভূইফোঁর সংগঠনের সংখ্যা শতাধিক। ফেসবুক কেন্দ্রিক বা বিভিন্ন দিবসে এদের তৎপরতা দেখা যায়। যেসবের নেই কোনা গঠণতন্ত্র, কমিটি বা সাংগঠনিক কাঠামো। অভিযোগ আছে চাঁদাবাজি, টেন্ডারবাজী আর তদবীর বাণিজ্যই এদের প্রধান উদ্দেশ্য।আওয়ামী লীগ নেতারা বলছেন, সুসময়ে দুধের মাছির মত উড়ে এসে জুড়ে বসা এসব নাম সর্বস্ব সংগঠনই শুধু নয়, এদের ইন্ধন দাতা আওয়ামী লীগ নেতাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেবে সংগঠণ।

আওয়ামী লীগের গঠনতন্ত্র থেকে জানা যায়, দলটির আটটি সহযোগী ও দুটি ভ্রাতপ্রতিম সংগঠন রয়েছে। সহযোগী সংগঠনগুলো হলো-যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, মহিলা লীগ, যুব মহিলা লীগ, কৃষক লীগ, তাঁতী লীগ, মৎস্যজীবী লীগ ও আওয়ামী লীগ আইনজীবী পরিষদ। আর ভ্রাতপ্রতিম সংগঠন দুটি হলো-ছাত্রলীগ ও শ্রমিক লীগ।

news24bd.tv/এমিজান্নাত 

পরবর্তী খবর