মূলধারার উন্নয়নের ধারায় সমতলের ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী এখনো পিছিয়ে
মূলধারার উন্নয়নের ধারায় সমতলের ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী এখনো পিছিয়ে
ব্র্যাকের উদ্যোগে মতবিনিময় সভা

মূলধারার উন্নয়নের ধারায় সমতলের ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী এখনো পিছিয়ে

অনলাইন ডেস্ক

সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণের পরও সমতলের ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর জনগণের টেকসই উন্নয়ন রয়ে গেছে প্রদীপের নিচের অন্ধকারে। মূলধারার উন্নয়নের ধারায় তারা এখনো পিছিয়ে।  

তাদের বেশির ভাগ মানুষই দিনমজুরি করে জীবিকা নির্বাহ করেন। বিকল্প আয়ের দক্ষতা না থাকায় তারা মূলধারার অর্থনৈতিক কার্যক্রম থেকে পিছিয়ে।

ফলে আর্থিক প্রণোদনার অভাবে শিক্ষার্থীরা উচ্চশিক্ষা থেকেও বঞ্চিত। স্থানীয় সামাজিক সংগঠনগুলো প্রায় অকার্যকর থাকায়- তাদের ভাষা ও সংস্কৃতি চর্চা হারিয়ে যাচ্ছে। একটি বেসরকারি সংস্থার জরিপে দেখা গেছে- কোভিড পরিস্থিতিতে তাদের ৭০ শতাংশ দারিদ্র্যসীমার নিচে অবস্থান করছে।  

এ পরিস্থিতি থেকে উত্তরণে প্রয়োজন সমতলের ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর মানুষের জন্যে পৃথক কমিশন গঠন, মূলধারায় সম্পৃক্তকরণের পাশাপাশি স্থায়িত্বশীল জীবন জীবিকা নিশ্চিতকরণে সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও অধিদপ্তরের সঙ্গে সমমনা উন্নয়ন সংস্থার যৌথভাবে কার্যক্রম পরিচালনা এবং অ্যাডভোকেসি কার্যক্রম গ্রহণ এখন সময়ের দাবি।  

আজ বুধবার (১১ আগস্ট) বিকেলে  একটি অনলাইন মতবিনিময় সভার অংশগ্রহণকারীগণ এই পরামর্শ প্রদান করেন। ‘সমতলের ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়নে সমন্বিত প্রয়াস’ শীর্ষক এই সভার আয়োজন করে ব্র্যাকের সমন্বিত উন্নয়ন কর্মসূচি (আইডিপি)।   
 
ব্র্যাকের ফেইসবুক পেইজে সম্প্রচারিত এই ভার্চুয়াল সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন সমাজ কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী আশরাফ আলী খান খসরু।  

তিনি বলেন, টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা বা এসডিজির অন্যতম অঙ্গীকার হচ্ছে “কাউকে পশ্চাতে রেখে নয়” অর্থাৎ উন্নয়নের কার্যক্রমে  সমাজের কোন অংশই বাদ পড়বে না। সেজন্য সকল সরকারি-বেসরকারি উন্নয়ন সংগঠনসমূহকে একসঙ্গে কাজ করা অত্যন্ত জরুরি। আমার মন্ত্রণালয় এসকল জাতি গোষ্ঠীর উন্নয়নের লক্ষ্যে ব্র্যাকের সঙ্গে যৌথ কার্যক্রম  পরিচালনার জন্য আলোচনা করতে পারে। কোভিড সংক্রমণ প্রতিরোধে আমরা ব্র্যাকসহ সমমনা প্রতিষ্ঠানসমূহের সর্বাত্মক সহযোগিতা কামনা করছি।

ভার্চুয়াল সভায় প্রকল্পের শিখনসমূহ কীনোট আকারে উপস্থাপন করেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের নৃতত্ত্ব বিভাগের অধ্যাপক মাহমুদুল এইচ সুমন এবং বাংলাদেশ ইন্ডিজেনাস পিপলস্ ফোরামের সাধারণ সম্পাদক সঞ্জীব দ্রং। অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন আইএলও-র এসডিজি জয়েন্ট প্রোগ্রাম ফর টি গার্ডেন-এরন্যাশনাল প্রোগ্রাম কোঅর্ডিনেটর আলেক্সিউস চিছাম, গ্রাম বিকাশ কেন্দ্রের পরিচালক সারা মারান্ডি, এসআইডি-সিএইচটি-র ন্যাশনাল প্রজেক্ট ম্যানেজার প্রসেনজিত চাকমা।  

স্বাগত বক্তব্য শেষে ব্র্যাক সামাজিক ক্ষমতায়ন ও সমন্বিত উন্নয়ন কর্মসূচির পরিচালক আন্না মিনজ ‘ আইডিপি ইন্ডিজেনাস পিপলস্ প্রজেক্ট’ বিষয়ক একটি পর্যালোচনা তুলে ধরেন। সভাটি সঞ্চালনা করেন ব্র্যাকের ঊর্ধ্বতন পরিচালক কেএএম মোর্শেদ। সমতলের ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর প্রতিনিধি বিজলী সিং ও বেলাল লাকড়া মাঠ থেকে সরাসরি ডিজিটালি সংযুক্ত হয়ে মতবিনিময় সভায় তাদের অনুভূতি ব্যক্ত করেন।  

আরও পড়ুন:

যতক্ষণ না পুলিশ আসবে, মিডিয়া আসবে লাইভ চলবে: পরীমনি

আবারও মুখোমুখি ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা

একসঙ্গে দুই ছেলে ও দুই মেয়ের জন্ম


আন্না মিনজ বলেন, সমতলের ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর দরিদ্র এবং প্রান্তিক মানুষ, বিশেষত নারীদের কিভাবে ক্ষমতায়ন করা যায় তা নিয়ে ব্র্যাক কাজ করছে যেন তারা সম্পদে তাদের অংশীদারত্ব নিশ্চিত করতে পারে।

সমতলের ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের রূপরেখা প্রণয়নে সরকার, উন্নয়ন সহযোগী প্রতিষ্ঠান, ব্র্যাক এবং সমমনা অন্যান্য উন্নয়ন সংস্থার অংশীদারত্ব জোরদারের কথাও বলা হয়। এতে সমমনা ব্যক্তি, প্রতিষ্ঠান প্রতিনিধি, গণমাধ্যমকর্মীরা যোগ দেন।   

news24bd.tv/আলী