মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়নে কোনো দলই সফল হয়নি

তৌহিদ শান্ত

মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়নে কোনো দলই সফল হয়নি

মুখে চেতানার কথা বললেও স্বাধীনতার পর থেকে এ পর্যন্ত আওয়ামী লীগ বা বিএনপি, কোন সরকারই মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়নে সফল হয়নি বলে মনে করেন বিএনপি ভাইস চেয়ারম্যান এবং মুক্তিযোদ্ধা অবসরপ্রাপ্ত মেজর হাফিজউদ্দিন আহমেদ। করোনার সময় অনেক মন্ত্রী যেমন দায়িত্ব ছেড়ে ঘরবন্দি হয়েছেন তেমনি বিএনপিসহ বিরোধী দলগুলোও মানুষের অধিকার আদায়েও ব্যর্থ পুরোপুরিই।

সে দিন জুলাই মাসের শেষ দিন, ৩১ শে জুলাই ১৯৭১। ভোর সাড়ে তিনটা। জামালপুর জেলার বকশিগঞ্জ উপজেলা। কমান্ডার হাফিজউদ্দিন আহমেদ নিজের সৈন্যদের নিয়ে সন্তর্পণে এগোচ্ছেন হানাদার ঘাটির উদ্দেশ্যে। কিন্তু হঠাৎ করেই আর্টিলারির গোলার মুহুর্মুহু আক্রমণে হতবিহ্বল সৈন্যরা। হাফিজউদ্দিন আহমেদ সৈন্যদের কাভার দিতে সবার সামনে চলে আসেন। মর্টারের স্প্রিন্টারের আঘাতে আহত হন।

বীর বিক্রম হাফিজউদ্দিন আহমেদের আক্ষেপ, যে চেতনা বা লক্ষ্য নিয়ে এমন সব যুদ্ধ হয়েছিল, বিএনপি বা আওয়ামী লীগ, সরকারে গিয়ে তার বাস্তবায়ন নয়, শুধু ক্ষমতা টেকাতেই তৎপর থেকেছে।


আরও পড়ুন: পদ্মা সেতু শুধু দুরত্ব কমাবে না, শিল্প বাণিজ্যেও অবদান রাখবে


জনরোষ থেকে বাঁচতে করোনার  ছুতোয় মন্ত্রীরা যেমন ঘরে। মানুষের অধিকার আদায়ে বিরোধী দলগুলোও তেমনি ব্যার্থ। ভ্যাকসিন নিয়ে বাণিজ্যের উদ্দেশ্যই ব্যবসায়ীর হাতে সুযোগ দিয়েছে সরকার।

নিজের দলের প্রতি তার পরামর্শ, দলের এখনকার সিনিয়র নেতাদের যোগ্য মনে না হলে, প্রয়োজনে, তরুণ নেতৃত্ব এনে বিএনপির স্থায়ী কমিটি শূন্যপদ পূর্ণ করা হোক।

কিন্তু মুক্তিযোদ্ধা হাফিজউদ্দিন আহমেদ তবুও আশাবাদী তরুণ প্রজন্মকে নিয়ে বলেন তারাই স্বাধীনতার মূল চেতনা ধারণ করে।

news24bd.tv আহমেদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

ক্ষতিকর রং ও নিষিদ্ধ ঘণচিনি মিশিয়ে বানাচ্ছে ভেজাল ওষুধ

ফখরুল ইসলাম

ক্ষতিকর রং ও নিষিদ্ধ ঘণচিনি মিশিয়ে বানাচ্ছে ভেজাল ওষুধ

গ্যাস্ট্রিক থেকে মুক্তি পেতে আপনি যে সেকলো নামের ওষুধ খান, তা কি আসল ব্র্যান্ডের? কিংবা একই রোগের এন্টাসিড সিরাপ ভেজাল নয় তো? বাজারে এমন চাহিদা সম্পন্ন বেশ কিছু ওষুধ নকল করে কোটি টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে বিশেষ চক্র। আছে ইউনানী ওষুধের লাইসেন্স নিয়ে এ্যালোপ্যাথি ওষুধ বানানোর হিড়িকও।

মেশাচ্ছে রং ও ঘণচিনি। এসব ওষুধই ছড়াচ্ছে অলিগলি কিংবা প্রত্যান্ত অঞ্চলের ফার্মেসীগুলোয়। যা স্বাস্থ্যঝুঁকি বাড়াচ্ছে ভোক্তাদের।

ওষুধ জীবনরক্ষা করে। মানুষকে মুক্তি দেয় অসুস্থ্যতা থেকে। রোগ সংক্রমণের ব্যাপকতায় বেশ কিছু ওষুধের চাহিদাও বাজারে বেশ। গ্যাস্ট্রিক, প্রেসার ডায়াবেটিস, কিডনী রোগের ওষুধ অন্যতম।

অতি মুনাফার লোভে এইসব ওষুধই নকল করছে জালিয়াত চক্র। নিউজ টোয়েন্টিফোরের অনুসন্ধান চলে সাভারের একটি কারখানায়। বাজারের চাহিদাবহুল ওমিপ্রাজল গ্রুপের গ্যাস্ট্রিকের ওষুধটি গোপনে মোড়ক নকল করে বানাচ্ছে কারখানাটি।


বিতর নামাজে দোয়া কুনুতের গুরুত্ব, উচ্চারণ ও অনুবাদ

নামাজের মধ্যে খুবই গুরুত্বপূর্ণ ওয়াজিব ১৪টি কাজ

এইচ টি ইমামের মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শোক

এইচ টি ইমাম আর নেই


যেটি আবার একটি চক্রের মাধ্যমে ছড়িয়ে দিচ্ছে সারাদেশের ফার্মেসীগুলোতে। শুধু সাভারেই নয় দেশে ওষুধের সবচেয়ে বড় বাজার মিটফোর্ডেও অসাধুচক্র অতিলোভে জীবনরক্ষাকারী ওষুধটি ভেজাল করতে ছাড়েনি। এখানেও ওমিপ্রাজল গ্রুপের এই সেকলো নকল করছে জালিয়াতচক্র। ওষুধটির হালকা প্রিন্টের মোড়ক দেখেই বুঝা যায় নকলের চিহ্ন। শুধু সেকলো নয় নকল করছে এমন আরো বহু ব্র্যান্ডের ওষুধ।

শুধু নকল নয় সাভারের এই ইউনানী লাইসেন্সধারী কোম্পানীটি ক্ষতিকর রং ও নিষিদ্ধ ঘণচিনি মিশিয়ে বানাচ্ছে এ্যলোপ্যাথি ওষুধ। ক্যাপসুল বানাতেও বেশ দক্ষ কোম্পানীটি। পাশের আরেক ইউনানী কোম্পানীতো এন্টাসিড সিরাপসহ বানাচ্ছে নানা রকমের ওষুধ।

আইনশৃঙ্খলাবাহিনী বিভিন্ন সময়ে অভিযানে ভেজাল ওষুধ সিন্ডিকেটের একাধিক সদস্যকে আটক করে। যৌথ অভিযান চালায় ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তরও। ওষুধ প্রশাসনের পরিসংখ্যান বলছে গত একবছরে ভেজাল ওষুধ প্রস্তুতের দায়ে জেল দিয়েছে ৫৭ জনকে।

ভেজাল ওষুধে স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে ভোক্তারা। তাই ভেজাল ওষুধ ও বাড়তি দামের বিরুদ্ধে জোরদার অভিযানের দাবি তাদের।

news24bd.tv আয়শা

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

সরকারের কঠোর নীতির কারণে কৌশল পাল্টাচ্ছে জঙ্গিরা

নিজস্ব প্রতিবেদক

সরকারের কঠোর অবস্থান এবং লাগাতার ​জঙ্গিবিরোধী নজরদারির কারণে কৌশল পাল্টাচ্ছে জঙ্গিরা। সম্প্রতি কানাডা সরকারের সন্ত্রাসবাদী গোষ্ঠীর তালিকায় ইসলামিক স্টেট বাংলাদেশের নাম যুক্ত হয়েছে। 

বলা হচ্ছে, এই গোষ্ঠীটি আইএস-এর বাংলাদেশি শাখা সংগঠন। তবে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের অতিরিক্ত মহাপরিচালক বলেন, বাংলাদেশে এই নামে কোন সন্ত্রাসী গোষ্ঠী নেই। জঙ্গিবাদে সম্পৃক্তদের স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে আনতে হটলাইন ইমেইল আইডি আশানুরূপ সাড়া পাচ্ছে বলেও জানান তিনি। 

মৃত্যুদণ্ডের রায় মাথায় নিয়েই অবলীলায় হেসে চলেছে ব্লগার লেখক অভিজিৎ রায়  হত্যাকাণ্ডের অভিযুক্ত জঙ্গিরা। বিশেষজ্ঞরা মনে করেন এসব হাসির পেছনে লুকিয়ে আছে নীরবতা। তার আড়ালে জঙ্গিদের নতুন করে সংগঠিত হওয়ার তৎপরতা।

জঙ্গিবাদ দমনের জন্য যাদের জন্ম ২০০৪ সালে সেই র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটলিয়ন (র‌্যাব) এর অতিরিক্ত মহাপরিচালক (অপারেশনস) কর্নেল তোফায়েল মোস্তফা সারোয়ার কি বলছে এই সম্পর্কে ?

জঙ্গিরা তাদের নতুন কৌশল অবলম্বন করে, আর আইন শৃঙ্খলা বাহিনীও তাদের কৌশল পরিবর্তন করে নতুন কৌশলে তাদের ধরার চেষ্টা করে।


পুলিশ হেফাজতে আইনজীবীর মৃত্যু: বিচার বিভাগীয় তদন্তের নির্দেশ

ভাসানচরে যাচ্ছে দুই হাজারের বেশি রোহিঙ্গা

‘অসম প্রেমে’ পড়েছেন সাদিয়া ইসলাম মৌ

ব্যানারে নেই বেগম জিয়া, এনিয়ে বিস্তর আলোচনা


এরই মাঝে কানাডা সরকারের সন্ত্রাসবাদী গোষ্ঠির তালিকায় ইসলামিক স্টেট বাংলাদেশের নাম উঠে এসেছে। বলা হচ্ছে, এই গোষ্ঠিটি আইএস-এর বাংলাদেশি শাখার সংগঠন। তাহলে কি ইসলামিক স্টেট বাংলাদেশ নামের কোন জঙ্গি সংগঠন।

এছাড়া বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো জঙ্গিদের সঠিক প্রক্রিয়ায় জঙ্গিবাদ থেকে ফিরিয়ে আনতে কাজ করেছেন তারা।

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

মহামারীর প্রাদুর্ভাবে পর্যটক শূন্য প্যারিস

ফয়সাল আহাম্মেদ দ্বীপ, ফ্রান্স থেকে

করোনা ভাইরাস, এক বছর ধরে জনজীবনে স্থবিরতা তৈরি করে রেখেছে। ঘরবন্দি হওয়ার পাশাপাশি আর্থিক ক্ষতির মুখে চাকুরীজীবী, ব্যবসায়ীসহ বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষ।  

বিশেষ করে প্যারিস পর্যটন নির্ভর হওয়ায় ক্ষতির পরিমাণটাও বেশি। পর্যটকদের তীর্থস্থান হিসেবে বিশ্ব নন্দিত প্যারিস শহর এখন অনেকটাই ভুতুড়ে নগরী। নেই আগের মতো প্রাণচাঞ্চল্য আর পথ-ঘাটের ভিড়। যুক্তরাজ্যের নতুন করোনাভাইরাসের ভেরিয়েন্ট শনাক্তের পর দ্বিতীয় দফা দীর্ঘ লকডাউনে পড়েছে ফ্রান্স।
উদ্বেগ আর উৎকণ্ঠায় সারাক্ষণ ফরাসিরা। চাকরি হারিয়েছেন অনেকেই। ব্যবসায় নেমেছে ধস। তবে আর ছয় সপ্তাহ পরই স্বস্তির আশ্বাস দিয়েছে ম্যাক্রো সরকার।


হুইল চেয়ারে বসেই প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় অভিমুখে পদযাত্রায় জাফরুল্লাহ

পরাজয় নিশ্চিত জেনে বিএনপি তৃণমূল নির্বাচন থেকে সরে যাচ্ছে: কাদের

দেশের থানাগুলোতে ২৬ হাজার ৬৯৫টি ধর্ষণ মামলা চলমান

পুলিশ হেফাজতে আইনজীবীর মৃত্যু: বিচার বিভাগীয় তদন্তের নির্দেশ


বলা হচ্ছে, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর সবচেয়ে বড় ক্ষতির মুখে ফ্রান্সের অর্থনীতি। দেশটির রাজস্ব আয়ের বড় অংশই আসে পযটন খাত থেকে। মহামারীর প্রাদুর্ভাবে পযটক শূন্য প্যারিস, গেলো এক বছর ধরে এই শিল্পের সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীরাও আর্থিক ক্ষতির কবলে।

করোনা মোকাবেলা করে প্যারিস আবারো তার আপন মহিমা ফিরে পাবে, ফিরে আসবে আগের সেই কর্ম চাঞ্চল্য, এমনটাই প্রত্যাশা ফরাসিদের।

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

উৎপাদন খরচের চেয়ে ওষুধের দাম অনেক বেশি

ফখরুল ইসলাম

লিভারের রোগের একটি ওষুধের উৎপাদন থেকে বাজারে আসা পর্যন্ত খরচ মাত্র ১০ টাকা। কিন্তু ক্রেতাদের সেই ওষুধ প্রায় পাঁচগুণ বেশি দামে কিনতে হচ্ছে , ৪৮ টাকায়। শুধু তাই নয়, কোলেস্টেরল, ডায়াবেটিস ও হার্টের ওষুধও উৎপাদন খরচের চেয়ে, ৪ থেকে ৫ গুণ বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে বাজারে।

বছরের পর বছর, ভোক্তারা এমন বাড়তি দামের যাঁতাকলে পিষ্ট হলেও, যেন দেখার কেউ নেই। বিশেষজ্ঞর বলছেন, ওষুধ কোম্পানিগুলোর স্বার্থরক্ষার নীতিমালার জন্য, দাম নিয়ন্ত্রণহীন আর জিম্মি রোগীরা।

ওষুধ, আর দশটা নিত্যপয়োজনীয় পণ্যের মত নয়। সামর্থ্য থাকুক বা না থাকুক, রোগ মুক্তিতে ওষুধ অপরিহার্য্য। উন্নত দেশে চিকিৎসা ব্যয়ের সিংহভাগই বহন করে রাষ্ট্র। সরকারি তথ্যমতে বাংলাদেশে ৬৭ শতাংশ চিকিৎসা ব্যয় বহন করতে হয় নাগরিককে। যার বেশিরভাগই ওষুধ কেনায় খরচ হয়।


যে জায়গায় মিল পাওয়া গেছে বুবলী-দীঘির

সোনালির প্রেমে পড়ে স্ত্রীকে ডিভোর্স দিতে চেয়েছিলেন যেসব তারকারা

পুলিশ হেফাজতে আইনজীবীর মৃত্যু: বিচার বিভাগীয় তদন্তের নির্দেশ

ভাসানচরে যাচ্ছে দুই হাজারের বেশি রোহিঙ্গা


১৯৯৪ সালের নীতিমালা অনুযায়ী মানুষের অতিপ্রয়োজনীয় ওষুধ হিসেবে ১১৭টি পণ্যের দাম নির্ধারণ করে নিয়ন্ত্রণ করছে সরকার। সরকার নির্ধারিত মূল্যে ওষুধ বিক্রি করেও ১১৭টি পণ্যে লাভ করছে কোম্পানিগুলো। এর বাইরেও দেশের বাজারে ওষুধ উৎপাদন হয় সাড়ে পনেরশো জেনেরিকের ৩৪শ ব্র্যান্ডের ওষুধ। যেগুলো বাজারমূল্য পুরোটাই ঠিক করে উৎপাদনকারী কোম্পানিগুলো।

কোম্পানিগুলোর উৎপাদন খরচের সঙ্গে বাজারমূল্যের পার্থক্যে দেখা যায় লিভারের ওষুধ এনটেকেভিয়ারের কাঁচামাল ৬ টাকা ১২ পয়সা,প্যাকেজিং ৬৩ পয়সার সঙ্গে উৎপাদন খরচ যোগ করে সবমিলিয়ে ১০ টাকার ওষুধ প্রায় পাঁচগুণ বেড়ে বাজার মূল্য ৪৮ টাকা। একইভাবে কোলেস্টেরলের ওষুধ রসুভাসটাটিনের উৎপাদন খরচ ৪ টাকা হলেও বাজারমূল্য ৩০ টাকা। ডায়াবেটিসের এমফাগ্লিফ্লোজিন, হার্টের ওষুধ ক্লোপিডোগ্রিলসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ রোগের ওষুধ বাজারে বিক্রি হচ্ছে চার থেকে পাঁচগুণ বেশি দামে।

ওষুধের এমন অনিয়ন্ত্রিত দামের জন্য সংশোধিত ওষুধ নীতিমালাকেই দায়ী করছেন সংশ্লিষ্টরা। সরকার নিয়ন্ত্রিত অতিপ্রয়োজনীয় ওষুধের তালিকা বাড়ানোর পাশাপাশি হাসপাতাল কেন্দ্রিক ওষুধ কেনাকেটার ব্যবস্থা করার আহ্বান ওষুধ বিশেষজ্ঞদের।
news24bd.tv আয়শা

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

মক্তিযুদ্ধে শাহজাহান সিরাজের অবদান অনস্বীকার্য

অন্তরা বিশ্বাস

মক্তিযুদ্ধে শাহজাহান সিরাজের অবদান অনস্বীকার্য

স্বাধীনতার ইশতেহার পাঠ করেছিলেন শাহজাহান সিরাজ। বাংলাদেশের পতাকায় লাল রঙের ভাবনাটাও ছিল তারই। মুক্তিযুদ্ধের সময় চার খলিফার একজন বলে খ্যাত এই বীর যোদ্ধা আর নেই। তবে রয়ে গেছে তার স্মৃতি। মুক্তিযুদ্ধের সময় তার অবদান অনস্বীকার্য। জীবত অবস্থায় নিউজ টোয়েন্টিফোরকে বলেছিলেন দেশকে নিয়ে তার ভাবনা আর স্মৃতির কথা। 

মুক্তিযুদ্ধের সময় দেরাদুনে প্রশিক্ষণ নেন শাহজাহান সিরাজ। এরপর যুদ্ধ শুরু করেন দেশের মাটিতে। বাংলাদেশ লিবারেশন ফোর্স বা মুজিব বাহিনীর কমান্ডার হিসেবে। তবে তার যুদ্ধ শুরু হয় এই যুদ্ধের অনেক আগে। আন্দোলন আর প্রতিবাদের মাঠে।


কাশ্মীর ইস্যুতে পাকিস্তানকে সমর্থন তুরস্কের, ভারতের ক্ষোভ

আবারও ইকো ট্রেন চলবে ইরান-তুরস্ক-পাকিস্তানে

সাতছড়ি জাতীয় উদ্যানে বিজিবির অভিযান, বিপুল গোলাবারুদ উদ্ধার

দেনমোহর পরিশোধ না করে স্ত্রীকে স্পর্শ করা যাবে কি না?


মুক্তিযুদ্ধের সময় যাদের চার খলিফা বলা হত, শাহজাহান সিরাজ ছিলেন তাদেরই একজন। তিনি ছিলেন তৎকালীন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক। একাত্তরের তেসরা মার্চ পল্টন ময়দানে বঙ্গবন্ধুর সামনে স্বাধীনতার ইশতেহার পাঠ করেন তিনি।

শাহজাহান সিরাজ বলেন, স্বাধীন বাংলার লাল সবুজ পতাকার বৃত্তের টুকটুকে লাল রঙের ভাবনাটা ছিল তার। আবার পতাকার সবুজ রংটা পাকিস্তানের পতাকার রঙের সঙ্গে মিলে যাচ্ছিল বলে ছিল তার ভীষণ আপত্তি। পরে সবুজের পরিবর্তে পতাকায় আনা হয় গাঢ় সবুজ রং।

২০২০ সালে না ফেরার দেশে চলে গিয়েছেন মুক্তিযুদ্ধের এই সংগঠক। কিন্তু বাংলাদেশের জন্ম-ইতিহাসে রেখে গিয়েছেন স্বর্ণময় পদচারণা। যা তাকে মৃত্যুর পরও অমর করে রেখেছে। যে দেশের জন্য তিনি যুদ্ধ করেছিলেন সেই স্বপ্নের বাংলাদেশ পাননি বলে মনে করতেন এই মুক্তিযোদ্ধা। তবে তার বিশ্বাস ছিল তরুণ প্রজন্ম ঠিকই দেশের হাল ধরবে।
news24bd.tv আয়শা

মন্তব্য

পরবর্তী খবর