সমালোচনা আমাদের কাজের সফলতা : কবীর চৌধুরী তন্ময়

নিজস্ব প্রতিবেদক

সমালোচনা আমাদের কাজের সফলতা : কবীর চৌধুরী তন্ময়

বাংলাদেশ অনলাইন অ্যাক্টিভিষ্ট ফোরাম (বোয়াফ) এর প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি কবীর চৌধুরী তন্ময়। ছবি ফেসবুক

হঠাৎ করেই কয়েকদিন যাবত সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তুমুল আলোচনা সমালোচনায় একজন ব্যক্তি। জাতীয় অনলাইন নিউজ পোর্টালগুলির সংবাদের মন্তব্যর ঘরে দেখা যাচ্ছে তাকে মন্তব্য করতে । যে মন্তব্যতে আবার পড়ছে হাজার হাজার লাইক। এই নিয়ে করা হচ্ছে ট্রল। ফেসবুকের সব জায়গায় কমেন্টকারি এই কবীর চৌধুরী তন্ময় যদিও এসব ট্রল বা তাকে নিয়ে করা বিভিন্ন ধরণের মন্তব্যের কোনও উওর এখনও দেননি। তবে কমেন্ট ইস্যুতে চলমান আলোচনা-সমালোচনার ব্যাখা দিয়েছেন নিউজ২৪ কে।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আপনাকে নিয়ে ব্যাপক সমালোচনা হচ্ছে এ ব্যাপারে  জানতে চাইলে তন্ময় নিউজ২৪ কে জানান,  বিষয়টাকে আমি ইতিবাচকভাবেই দেখছি। আর এটি আমাদের কাজের কিংবা ক্যাম্পেইনের সফলতাও।

বিষয়টি নিয়ে পরিস্কার করে বললে, আমরা দেশের এবং দেশের বাইরের যেমন-ভারত, পাকিস্তান, আমেরিকা, কানাডা, রাশিয়ার সরকার ও রাষ্ট্র প্রধানদের ফেসবুক পেজে আমারদের ক্যাম্পেইন শুরু করি। মন্তব্য করি, বাংলাদেশকে সেখানে তুলে ধরার চেষ্টা করি। পেজে আপলোড করা ছবি, ভিডিও এবং স্ট্যাটাসের পরিপ্রেক্ষিতে আমাদের মন্তব্য অর্থাৎ আমার ভেরিফাইড ফেসবুক পেজ থেকে মন্তব্য দিয়ে সেদেশের কিংবা উক্ত পেজের সাথে যুক্ত অনলাইন অ্যাক্টিভিস্টদের মনোজগতের বিষয়টা জানার চেষ্টা করি। এমনি করে পাকিস্তানের বর্তমান প্রজন্মের কাছে প্রশ্ন করি, তারা ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে কি জানে, গণহত্যার জন্য বাংলাদেশের কাছে ক্ষমা চাওয়া বিষয় নিয়েও তাদের মতামত জানতে চাই।

তিনি আরও বলেন, ক্যাম্পেইনের অংশ হিসেবে বাংলাদেশের গণমাধ্যমের কয়েকটা ফেসবুক পেজে আমরা মন্তব্য করা শুরু করি। আমাদের টার্গেট ছিল আমরা ১০ দিন আমাদের সকল গণমাধ্যমের বিশেষ করে জনপ্রিয় সাইটগুলোতে আমরা মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস, সামাজিক সচেতনতা, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমান এবং আদালত দ্বারা প্রমাণীত মানবতাবিরোধী অপরাধী দেলওয়ার হোসাইন সাঈদীকে নিয়ে প্রশ্ন করবো এবং উত্তর জানার চেষ্টা করবো।

আর শুরুটা অন্য ফেসবুক থেকে করা হলে তেমনটা সাড়া পাওয়া যায়নি। বলা চলে, কেউ ওই মন্তব্যগুলোতে গুরুত্ব দেয়নি। তখনই সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করে আমার ব্যক্তিগত ফেসবুক পেজ থেকে আমাদের ক্যাম্পেইন অর্থাৎ মন্তব্য করা শুরু করি।

 কবীর চৌধুরী তন্ময়  বলেন, সবচেয়ে মজার বিষয় হচ্ছে, আমাদের ক্যাম্পেইন ১০ দিন করা লাগেনি। মাত্র দুইদিনেই যেসকল আলোচনা, সমালোচনা, ব্যক্তিগত আক্রমন, চরিত্রহনন করার চেষ্টা আমরা অবলোকন করেছি-ওইসব তথ্য প্রমাণগুলো যেমন, ব্যক্তির বয়স, পেশা, রাজনৈতিক দৃষ্টিভঙ্গি, সামাজিক সচেতনতার অবস্থানগুলো নিয়ে এখন আমরা স্টাডি করার চেষ্টা করছি। ভাইরালকৃত ছবি, প্রাপ্ত তথ্য ও তথ্য সুত্রগুলো আমাদের যাচাইবাচাই চলছে।


অভাব দুর হবে, বাড়বে ধন-সম্পদ যে আমলে

সংবাদ উপস্থাপনায় ও নাটকে রূপান্তরিত দুই নারী

করোনার ভ্যাকসিন গ্রহণে বাধা নেই ইসলামে

কমেন্টের কারণ নিয়ে যা বললেন কবীর চৌধুরী তন্ময়


অনলাইন এ্যাক্টিভিষ্ট হিসাবে বিষয়টাকে আপনি কিভাবে দেখছেন জানতে চাইলে তিনি নিউজ২৪ কে জানান, একজন অনলাইন অ্যাক্টিভিস্ট কিংবা বাংলাদেশ অনলাইন অ্যাক্টিভিস্ট ফোরাম (বোয়াফ) সভাপতি হিসাবে আমি এটাকে অভিজ্ঞতার দৃষ্টিভঙ্গিতে নিয়েছি। কারণ, ডিজিটাল প্লাটফর্ম নিরাপদ রাখতে হলে, অনলাইন অ্যাক্টিভিস্টদের মনোজগতের বিষয়, দায়িত্বজ্ঞান আর সচেতনতার দিকগুলো জানা আমাদের জন্য খুব জরুরী। একদিকে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিলের আন্দোলন, আরেকদিকে এই আইনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে কতিপয় মানুষ কি ধরণের অপপ্রচার আর ব্যক্তিগত আক্রমন করতে পারে-এটা আশাকরি আমাদের গণমাধ্যমসহ দেশবাসী অবগত হয়েছে।

কবীর চৌধুরী তন্ময় 
২০১৩ সালে গণজাগরণ মঞ্চের প্রগতিশীল ও জাতি পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শ, মুক্তিযোদ্ধা, মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস এবং স্বাধীনতার পক্ষে একঝাঁক ব্লগার, লেখক, গবেষক, সাংবাদিক ও অনলাইন অ্যাক্টিভিষ্টদের নিয়ে গঠিত বাংলাদেশ অনলাইন অ্যাক্টিভিষ্ট ফোরাম (বোয়াফ)-এর প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন।  বিভিন্ন ব্লগে লেখালেখি, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও প্রগতিশীল বিভিন্ন আন্দোলন-সংগ্রামে মাঠে-ময়দানে দেখা যায়। সাংবাদিকতার পাশাপাশি দেশীয় ও আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে তিনি নিয়মিত কলাম লিখছেন। মুক্তিযুদ্ধ বিষয় নিয়ে গবেষণা করছেন। লিখেছেন বেশ কয়েকটি বইও।

তার বাবা এম এ খালেক চৌধুরী মহান মুক্তিযুদ্ধে পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে অস্ত্র হাতে যুদ্ধ করেন। বড় কাকা সুজত আলী চৌধুরী স্বাধীনতাবিরোধী রাজাকার বাহিনীর হাতে নির্মমভাবে শহীদ হন, যাঁর মরদেহ তিনি ও তার পরিবার আজও খুঁজে পায়নি।

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

বাংলাবাজার-শিমুলিয়া নৌরুটে ঢাকামুখী মানুষের ভিড়

অনলাইন ডেস্ক

বাংলাবাজার-শিমুলিয়া নৌরুটে ঢাকামুখী মানুষের ভিড়

রাজধানীমুখী যাত্রীদের উপচেপড়া ভিড় দেখা গেছে বাংলাবাজার-শিমুলিয়া নৌরুটে। লঞ্চ ও স্পিডবোট বন্ধ থাকলেও আজ শুক্রবার (২৩ এপ্রিল) সকাল থেকে ফেরিতে যাত্রীদের ভিড় ছিল চোখে পড়ার মতো।

সর্বাত্মক লকডাউনের মধ্যে ২৫ এপ্রিল থেকে দোকান পাট খোলে দেয়ার ঘোষণার পর থেকে মাদারীপুরে বাংলাবাজার যাত্রীদের ভিড়।

ঘাট কর্তৃপক্ষ জানায়, এ নৌরুটে সাধারণত ১৮টি ফেরি চললেও করোনা ভাইরাসের চলমান লকডাউনে চলাচল করছে মাত্র ৫টি ফেরি। সকাল থেকেই ব্যক্তিগত গাড়ির সংখ্যা বাড়তে থাকে। এছাড়া যাত্রীদেরও চাপ বাড়তে থাকে ফেরিঘাটে। লঞ্চ ও স্পিডবোট বন্ধ থাকায় যাত্রীরা ফেরিতে করে পারাপার হচ্ছেন। অতিরিক্ত যাত্রীদের চাপের কারণে উপেক্ষিত ছিল স্বাস্থ্যবিধি।

আরও পড়ুন:


ওবায়দুল কাদেরকে পদত্যাগের আহ্বান ভাগ্নে মঞ্জুর

২৫ এপ্রিল থেকে দোকানপাট ও শপিংমল খোলা

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় মৃত্যু ৮৮

বাগেরহাটে শিশু ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেপ্তার ২


মাদারীপুরের বাংলাবাজার ফেরিঘাটের ব্যবস্থাপক মো. সালাউদ্দিন জানান, সীমিত পরিসরে ফেরি দিয়ে জরুরি সেবা প্রদানকারী যানবাহন পারাপার করা হচ্ছে। এর মধ্যে অ্যাম্বুলেন্স, পণ্যবাহী ট্রাক, কুরিয়ার সার্ভিসের গাড়ি অগ্রাধিকার দেয়া হচ্ছে। 

এদিকে, ইজিবাইক, সিএনজি ও মোটরসাইকেলযোগে বাড়তি ভাড়া দিয়ে দক্ষিণাঞ্চল থেকে যাত্রীরা ঘাটে আসছেন। পরে ফেরিতে করে পদ্মা নদী পাড়ি দিয়ে নিজ নিজ গন্তব্যে ছুটছেন তারা।

news24bd.tv / কামরুল 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

কৃষকের ধান কেটে ঘরে তুলে দিয়েছে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা

বগুড়া প্রতিনিধি:

কৃষকের ধান কেটে ঘরে তুলে দিয়েছে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনায় কৃষকের ধান কেটে ঘরে তুলে দিয়েছে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। চলমান লকডাউনে শ্রমিক সংকট ও অর্থনৈতিক সংকটে যখন কৃষক ধান কাটতে পারছিল না তখন পাশে দাঁড়ালো ছাত্রলীগ। 

শুক্রবার বগুড়া জেলা ছাত্রলীগের গণশিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক সজীব সাহার নেতৃত্বে ছাত্রলীগের ২০ জন নেতাকর্মীরা কৃষক সবুজ মিয়ার ধান কেটে দেন। সকাল ১০ টায় সদর উপজেলার শেখেরকোলা ইউনিয়নের নুরুইল দক্ষিনপাড়া এলাকায় কৃষক সবুজ মিয়ার ৩১ শতাংশ জমির পাকা ধান কেটে বাড়িতে পৌঁছে দেন তারা। 

এর আগে বৃহস্পতিবার সদর উপজেলা সাবগ্রামের চান্দপাড়ায় কৃষক সোহরাব হোসেনের ২৮ শতাংশ জমির ধান কেটে মাড়াই করে ঘরে তুলে দিয়েছে নেতাকর্মীরা। জেলা ছাত্রলীগের প্রচার সম্পাদক মুকুল ইসলামের নেতৃত্বে ২৫ জন নেতাকর্মী এতে অংশগ্রহন করেন। এ সময় জেলা ছাত্রলীগের কর্মী ইউসুফ, শামীম, জীম, নুর, মোমিন, আহাদ, নাবিল, শাহরিন, শুভ ও মেহেদী উপস্থিত ছিলেন।

শুক্রবার ধান কাটা কর্মসূচিতে অংশ নেন শেখেরকোলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কামরুল হাসান ডালিম, ছাত্রলীগ নেতা নুর আলম, আব্দুর রউফ সুইট, আব্দুল মোমিন, আরিফুর ইসলাম, মোহন ইসলাম, সামিউল হক, সাগর ইসলাম, আবু সাঈদ, বাধন ইসলাম, সবুজ হাসান প্রমুখ।

আরও পড়ুন:


ওবায়দুল কাদেরকে পদত্যাগের আহ্বান ভাগ্নে মঞ্জুর

২৫ এপ্রিল থেকে দোকানপাট ও শপিংমল খোলা

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় মৃত্যু ৮৮

বাগেরহাটে শিশু ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেপ্তার ২


কৃষক সবুজ মিয়া ও সোহরাব হোসেন জানান, খবরে দেখেছি, বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা ধান কেটে দেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন, ছাত্রলীগের ছেলেগুলো ধান কেটে দিয়েছে। ক্ষেতে ধান পাকছে কিন্তু কাটার জন্য বিপদে ছিলাম, ছাত্রলীগের কর্মীরা আমাদের সেই চিন্তা দূর করে দিয়েছেন। তারা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

বগুড়া জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি নাইমুর রাজ্জাক তিতাস জানান, বগুড়ায় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা মানবিক কর্মকান্ডে সদা সক্রিয়। করোনাকালে অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে নেতাকর্মীরা। পবিত্র রমজান মাসে সেহেরী, ইফতার বিতরণ করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে নেতাকর্মীরা দরিদ্র কৃষকের জমির ধান কেটে দিচ্ছে। এ কার্যক্রম অব্যহত থাকবে বলে তিনি জানান।

news24bd.tv / কামরুল 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

নওগাঁয় ফেনসিডিলসহ দুই কথিত সাংবাদিক আটক

নওগাঁ প্রতিনিধি:

নওগাঁয় ফেনসিডিলসহ দুই কথিত সাংবাদিক আটক

নওগাঁর ধামইরহাট উপজেলার রুপনারায়নপুর এলাকা থেকে ফেনসিডিলসহ মাহাবুব আলম রানা (৩২) ও সঞ্জয় কুমার দাশ জয় (২৭) নামে দুইজন কথিত সাংবাদিককে আটক করেছে পুলিশ। 

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে উপজেলার রুপনারায়নপুর থেকে দুই বোতল ফেনসিডিলসহ তাদেরকে আটক করা হয়। 

আটককৃত মাহাবুব আলম রানা নিজেকে দৈনিক বিশ্ব মানচিত্র পত্রিকার স্টাফ রিপোর্টার হিসেবে পরিচয় দিয়ে আসতেন। সে নওগাঁ সদর উপজেলার লাটাপাড়া মহল্লার আবুল কালাম আজাদের ছেলে। অপর সঞ্জয় কুমার দাশ জয় নিজেকে বিবিসি নিউজ ২৪ ডটকম এর নওগাঁ জেলা প্রতিনিধি পরিচয় দিয়ে আসছিলেন। তিনি নওগাঁ হাট-নওগাঁ সদরের কালীতলা এলাকার সন্তোষ কুমার দাশের ছেলে।

আরও পড়ুন:


২৫ এপ্রিল থেকে দোকানপাট ও শপিংমল খোলা

বান্দরবান সীমান্তে বিজিবির সঙ্গে 'বন্দুকযুদ্ধে' রোহিঙ্গা নিহত

শ্যামনগরে মাছের ঘের থেকে নারীর মরদেহ উদ্ধার

বাগেরহাটে শিশু ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেপ্তার ২


ধামইরহাট থানার ওসি আব্দুল মমিন জানান, তারা সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে নিয়মিত ধামইরহাট ও পত্নীতলা উপজেলার বিভিন্ন স্থানে ফেনসিডিল খাওয়ার জন্য আসত এবং সাথে নিয়ে যেত। এমন গোপন সংবাদের ভিত্তিতে উপজেলার রুপনারায়নপুর থেকে ফেনসিডিলসহ তাদেরকে হাতে নাতে আটক করা হয়। এ সময় তাদের সাথে থাকা একটি ফেজার মোটরসাইকেল জব্দ করা হয়। তাদের বিরুদ্ধে নিয়মিত মাদক মামলা দায়ের হয়েছে। 

শুক্রবার তাদেরকে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে তাদেরকে প্রেরণ করা হয়েছে। ওসি আরও বলেন, কথিত সাংবাদিক মাহবুব আলম রানার বিরুদ্ধে বিভিন্ন অপরাধে ইতোমধ্যে নওগাঁর পত্নীতলা ও নওগাঁ সদর থানায় মাদক সহ একাধিক মামলা রয়েছে।

news24bd.tv / কামরুল 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

শ্যামনগরে মাছের ঘের থেকে নারীর মরদেহ উদ্ধার

শাকিলা ইসলাম জুঁই, সাতক্ষীরা:

শ্যামনগরে মাছের ঘের থেকে নারীর মরদেহ উদ্ধার

সাতক্ষীরার শ্যামনগর উপজেলার মাজাট অনন্তপুর গ্রামে নুরনাহার বেগম (৪০) নামে এক ভাসমান নারীর মরদেহ উদ্ধার করেছে থানা পুলিশ।

আজ শুক্রবার ভোর ৬ টার দিকে পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) হাবিবুর রহমান স্থানীয় মোশারফের মাছের ঘের থেকে ভাসমান অবস্থায় ওই নারীর মরদেহ উদ্ধার করে। তিনি ওই গ্রামে আব্দুল গফফার গাজীর স্ত্রী।

আরও পড়ুন:


২৫ এপ্রিল থেকে দোকানপাট ও শপিংমল খোলা

বান্দরবান সীমান্তে বিজিবির সঙ্গে 'বন্দুকযুদ্ধে' রোহিঙ্গা নিহত

ভিক্ষা করে হলেও অক্সিজেন সরবরাহের নির্দেশ ভারতে

১৫ বছর ধরে কাজে যান না, বেতন তুললেন সাড়ে ৫ কোটি টাকা!


শ্যামনগর থানার ওসি নাজমুল হুদা সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, স্থানীয়দের কাছে খবর পেয়ে মৎস্য ঘের হতে ভাসমান অবস্থায় নারীর মরদেহ উদ্ধার করে মৃত্যুর সঠিক কারণ নির্ণয়ের জন্য সাতক্ষীরা মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। থানায় অপমৃত্যু মামলা হয়েছে।

news24bd.tv / কামরুল 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

নারায়ণগঞ্জে আবাসিক ভবনে বিস্ফোরণ, শিশুসহ দগ্ধ ১১

নিজস্ব প্রতিবেদক

নারায়ণগঞ্জে আবাসিক ভবনে বিস্ফোরণ, শিশুসহ দগ্ধ ১১

নারায়ণগঞ্জ শহরের পশ্চিম তল্লা এলাকায় একটি ফ্ল্যাট বাড়িতে বিস্ফোরণে তিন মাসের শিশুসহ দুই পরিবারের ১১ জন দগ্ধ হয়েছেন। শুক্রবার (২৩ এপ্রিল) ভোরে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

বিস্ফোরণে তৃতীয় তলার ফ্ল্যাটের দুটি দেয়াল উড়ে গিয়ে পাশের ভবনের ছাদে পড়েছে, ভেঙে গেছে ভবনের দরজা-জানালার কাচ। বিস্ফোরণে ধসে পড়েছে রান্নাঘরের দেয়াল। বিকট শব্দ শুনে এলাকাবাসী জড়ো হয়। তারা আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নেওয়ার ব্যবস্থা করে।

দগ্ধদের মধ্যে শিশু মাহিরাসহ পাঁচজনকে গুরুতর অবস্থায় রাজধানীর শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে ভর্তি করা হয়েছে। বাকিদের নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। 

শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে ভর্তি দগ্ধরা হলেন—   মো. হাবিবুর (৪০), তাঁর স্ত্রী আলেয়া বেগম (৩৮), তাঁর ছেলে লিমন (১৭), মেয়ে মিম (১৮), তিন মাসের শিশু মাহিরা। দগ্ধ অন্যরা হলেন মো. সোনাহার (৪০), শান্তি আক্তার (৩০), সামিউল (২৫), মনোয়ারা (২২) ও সাথী (২৫)। অপর একজনের নাম জানা যায়নি। আহত লোকজনের বেশির ভাগই পোশাক কারখানার শ্রমিক।


আরমানিটোলায় কেমিক্যাল গোডাউনের অগ্নিকাণ্ডে নিহত ৫, দগ্ধ ২০ 

করোনার ভয়ে ভারত ছাড়লো শাহরুখের পরিবার

রাহমানিয়া মাদ্রাসায় রাজনীতি ঢোকান বাবা আজিজুল, দখল করে রাখেন ছেলে মাওলানা মামুনুল, অভিযোগ শিক্ষকদের

ফর্মুলা দেবে রাশিয়া, করোনার টিকা উৎপাদন করবে বাংলাদেশ


নারায়ণগঞ্জ ফায়ার সার্ভিসের উপ-সহকারী পরিচালক আব্দুল্লাহ আল আরেফীন জানান, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, চুলা বা গ্যাস লাইনের লিকেজ থেকে ঘরে গ্যাস জমা ছিল, যা আগুনের সংস্পর্শে পেয়ে বিস্ফোরিত হয়েছে। তবুও বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। 

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর