প্রতিমন্ত্রীকে অপরিপক্ব বলে বহিষ্কার দাবি চরমোনাই পীরের
প্রতিমন্ত্রীকে অপরিপক্ব বলে বহিষ্কার দাবি চরমোনাই পীরের

প্রতিমন্ত্রীকে অপরিপক্ব বলে বহিষ্কার দাবি চরমোনাই পীরের

অনলাইন ডেস্ক

এরশাদের আমলে সংবিধানে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম করা হয়েছিল। সেটা এখনও বহাল আছে। সেটা বহাল থাকার পরও একজন প্রতিমন্ত্রী রাষ্ট্রধর্ম নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন। এটা সংবিধান পরিপন্থি বলে জানিয়েছেন  চরমোনাই পীর মুফতি রেজাউল করিম।

তথ্য প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসানের বহিষ্কার দাবি করে তিনি আরও বলেন ‘মানুষের আবেগ-অনুভূতিতে আঘাত করে রাজনীতিক নেতা ও মন্ত্রীদের কথা বলার প্রবণতা বন্ধ করতে হবে।

শনিবার দুপুরে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে দেশের চলমান পরিস্থিতি নিয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে লিখিত  লিখিত বক্তব্যে তিনি এ দাবি জানান।

লিখিত বক্তব্যে চরমোনাই পীর বলেন, ক্ষমতাসীন রাজনীতিক দলের নেতা ও মন্ত্রীরা প্রায়ই ইসলামের বিরুদ্ধে বিষোদগার করেন। সম্প্রতি একজন প্রতিমন্ত্রীর বালখিল্যতা জাতি দেখেছে। অপরিপক্ব সেই প্রতিমন্ত্রী যেভাবে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম নিয়ে মন্তব্য করেছেন তাতে জনরোষ আরও বেড়েছে।

মন্দিরে হামলার ঘটনাকে বিচ্ছিন্ন ঘটনা দাবি করে তিনি বলেন,‘এ ধরনের ঘটনা বাংলাদেশের সাধারণ চরিত্র নয়। বাঙালির হাজার বছরের ইতিহাস ও মুসলমানদের ধর্মীয় শিক্ষা এ ধরনের ঘটনাকে সমর্থন করে না।

‘দেশে একদলীয় শাসন চলছে’ মন্তব্য করে চরমোনাই পীর বলেন, ‘দেশে যখন একদলীয় শাসন চলে, সরকার যখন বিরোধী রাজনীতিক দলগুলোকে কোণঠাসা করে রাখে তখন অনিয়ন্ত্রিত বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়া একটি পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া। কুমিল্লা ও দেশব্যাপী তারই বহিঃপ্রকাশ দেখা গেছে।

সংবাদ সম্মেলনে কুমিল্লার ঘটনা-পরবর্তী ঘটনা তদন্তে বিচার বিভাগীয় কমিটি করার দাবি করে।

সংবাদ সম্মেলনে ধর্ম অবমাননাকে কেন্দ্র দেশের বিভিন্ন জায়গায় সনাতন সম্প্রদায়ের মন্দির ও ঘরবাড়িতে যেসব অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঘটেছে তার তীব্র নিন্দা করে তার সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে দোষীদের দ্রুত বিচার দাবি করেন চরমোনাই পীর।

আরও পড়ুন

প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় কলেজছাত্রকে অপহরণ করে বিয়ে করলো তরুণী!

শরীরের ইমিউনিটির উপর বিশ্বাসী অভিনেত্রী করোনায় আক্রান্ত

অনিয়ন্ত্রিত পতিতাবৃত্তি বন্ধ করতে চান স্পেনের প্রধানমন্ত্রী

অবরোধ তুলে নিলো ঢাবি শিক্ষার্থীরা


সংবাদ সম্মেলনে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মহাসচিব মাওলানা ইউনুস আহমাদ, সৈয়দ মোসাদ্দেক বিল্লাহ আল-মাদানী, আলহাজ খন্দকার গোলাম মাওলা, অধ্যাপক মাহবুবুর রহমানসহ বিভিন্ন পর্যায়ের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

news24bd.tv/আলী

;