কানাডার সিটি নির্বাচনে মেয়র প্রার্থী বাংলাদেশি মিজানুর রহমান

লায়লা নুসরাত, কানাডা

কানাডার সিটি নির্বাচনে মেয়র প্রার্থী বাংলাদেশি মিজানুর রহমান

আগামী ১৮ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে কানাডার ক্যালগেরিতে সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন। এই নির্বাচনে বিভিন্ন ভাষাভাষীর ২৭ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এরমধ্যে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত মিজানুর রহমান মেয়র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনী লড়াইয়ে রয়েছেন।

ক্যালগেরির সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে প্রার্থীরা করোনায় অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধার কর্মসূচী, স্বাস্থ্য ব্যবস্থার উন্নয়ন, কর্মসংস্থান, পরিবেশ ও জলবায়ু নিয়ে নানা ধরনের প্রতিশ্রুতি দিয়ে ক্যালগেরি শহর চষে বেড়াচ্ছেন। লিফলেট, পোষ্টার আর সাইনবোর্ডে সয়লাব এখন পুরো ক্যালগেরি শহর।

অন্যদিকে কানাডার বাংলাদেশি কমিউনিটি থেকে এবার মিজানুর রহমান একাই সিটি করপোরেশনের মেয়র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করবেন।

মিজানুর রহমান ছোট্ট বয়সে মুক্তিযুদ্ধের সময় মুক্তিযোদ্ধাদের তথ্য দিয়ে সাহায্য করতেন। বাংলাদেশে থাকার সময় ছাত্র জীবন থেকেই রাজনীতিতে সম্পর্কৃত ছিলেন। বিভিন্ন দেশে বসবাস করার সুবাদে তিনি রাজনৈতিক ও সুশীল সমাজ সম্পর্কে জ্ঞান ও অভিজ্ঞতা লাভ করেন। এছাড়াও তিনি বাাংলা, ইংরেজি, ফরাসি, ইতালীয়, হিন্দি, উর্দু ইত্যাদি ভাষায় দক্ষ। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক ডিগ্রি সম্পন্ন করার পর ১৯৮৮ সালে কানাডায় এসে বিভিন্ন পেশায় নিজেকে নিয়োজিত করেছেন।

২০১৫ সালে মিজানুর রহমান ক্যালগারি পশ্চিমের এনডিপি রাজনৈতিক দলের প্রথম রানার-আপ প্রার্থী ছিলেন। তিনি ইউনাইটেড কনজারভেটিভ পার্টির নির্বাচনী এলাকার পরিচালনা পর্ষদের একজন কার্যকরী সদস্য।

মিজানুর রহমান তাঁর  রাজনৈতিক জ্ঞান এবং অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে ক্যালগেরিবাসী তথা প্রবাসীদের সেবায় এগিয়ে আসতে চান। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ক্যালগেরি শহরের বিভিন্ন সমস্যা সম্পর্কে আমি অবগত। শুধু বাংলাদেশী কমিউনিটি নয় অন্যান্য সংখ্যালঘিষ্ট নৃজাতি কমিউনিটিগুলির একই অবস্থা। কানাডার প্রধান স্বেতাঙ্গ জাতি যে পর্যায়ে এগিয়ে আছে তাতে কানাডার সকল সুযোগ সুবিধা ওরাই ভোগ করছে। সংখ্যালঘু নৃজাতি কমিউনিটিগুলির বড় সমস্যা হচ্ছে ভাষা ও প্রতিকুল আবাহাওয়া। ফলে স্বেতাঙ্গ জাতির সাথে চাকুরী বাজার ও ব্যাবসা বানিজ্য আমরা অনেক পিছিয়ে আছি। তিনি আরো বলেন--আমি আসন্ন ক্যালগেরি সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে জয়ী হলে এই সমস্যাগুলি পরির্বতনের জন্য আমাদের কমিউনিটি নেতৃবৃন্দদের কানাডিয়ান জীবনযাত্রা ও ভাষা শিক্ষাকে উৎসাহিত করবো। এছাড়াও আমার নির্বাচনী এজেন্ডায় মহান ভাষা আন্দোলনের প্রতি সম্মান প্রদর্শন পূর্বক একটি শহীদ মিনার স্থাপন করার অঙ্গিকার করেছি। যেখানে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা কে সম্মান করতে কানাডিয়ানরাও এগিয়ে আসবে। এই শহীদ মিনার আমাদের চেতনাকে সমৃদ্ধ করবে।

আরও পড়ুন


শতবর্ষী মায়ের অপেক্ষা, ৭০ বছর পর কুদ্দুস খোঁজ পেলেন পরিবারের

ফের বিতর্কে জড়িয়ে পড়লেন কপিল শর্মা

শনিবার রাজধানীর যে সব মার্কেট ও দর্শনীয় স্থান বন্ধ

করোনা মোকাবিলায় জাতিসংঘে ৬ প্রস্তাব প্রধানমন্ত্রীর


তিনি আরও বলেন, কানাডার প্রধান স্বেতাঙ্গ সমাজ আমাদেরকে অদক্ষ শ্রমিক মনে করে কিন্তু আমরা কেউই অদক্ষ নই। শুধু ভাষাই প্রতিবন্ধক। এই সমস্যাটি অতিক্রম করতে পারলে কানাডার মাটিতে আমরা অনেক সুযোগ সুবিধা লাভ করব এবং কানাডার অর্থনীতিতে অবদান রাখতে পারব। আর এই জন্য আমাদের সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে।

উল্লেখ্য কানাডার নির্বাচন এবং রাজনীতিতে প্রবাসীদের অংশগ্রহণ কানাডার সরকার এবং রাজনীতিতে কমিউনিটির গুরুত্ব ও গ্রহণযোগ্যতা বাড়াবে, ফলে অভিবাসন, শিক্ষা, শ্রমশক্তি রপ্তানি, অর্থপাচারসহ বিভিন্ন বিষয়ে বাংলাদেশের স্বার্থের পক্ষে নেতৃত্ব গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারবে বলে মনে করছেন কানাডায় বসবাসরত প্রবাসী রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।।

news24bd.tv এসএম

পরবর্তী খবর

নিউইয়র্কে ছুরিকাঘাতে বাংলাদেশি নিহত

অনলাইন ডেস্ক

নিউইয়র্কে ছুরিকাঘাতে বাংলাদেশি নিহত

ছিনতাইকারীর ছুরিকাঘাতে যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে  সালাহউদ্দিন বাবলু (৫১) নামে প্রবাসী এক বাংলাদেশি নিহত হয়েছেন।  স্থানীয় সময় শনিবার রাত ১টার দিকে ম্যানহাটনের সারা দ্য রুজভেল্ট পার্কে এ ঘটনা ঘটে। সালাহউদ্দিন বাবলুর বাড়ি নোয়াখালীর সোনাইমুড়িতে। 

নিউইয়র্ক পুলিশ জানিয়েছে, ওই পার্কের একটি বেঞ্চে বিশ্রাম নিচ্ছিলেন সালাহউদ্দিন। একই বেঞ্চে বসে থাকা কৃষ্ণাঙ্গ এক যুবক সালাহউদ্দিনের ইলেকট্রিক বাইক নিয়ে পালাতে চাইলে তিনি বাধা দেন। 

ধ্স্তাধস্তির একপর্যায়ে সালাহউদ্দিনকে উপর্যুপরি ছুরিকাঘাত করে বাইকটি নিয়ে চলে যায় ছিনতাইকারী।
 
পরিবারসূত্রে জানা গেছে, নিউইয়র্ক সিটির ম্যানহাটনে ‘গ্রুবহাব’ অ্যাপের মাধ্যমে খাবার ডেলিভারির কাজ করতেন সালাহউদ্দিন। সে জন্য ছয় মাস আগে ধার করে ওই ইলেকট্রিক বাইকটি কিনেছিলেন।

 news24bd.tv/আলী  

পরবর্তী খবর

কানাডায় ‘মুক্তবিহঙ্গ’র নাটক “নওকর শয়তান মালিক হয়রান” মঞ্চস্থ

লায়লা নুসরাত, কানাডা

কানাডায়  ‘মুক্তবিহঙ্গ’র নাটক “নওকর শয়তান মালিক হয়রান” মঞ্চস্থ

কানাডার ক্যালগেরির নর্থ ইস্টের ফলকনরিজ কমিউনিটি এসোসিয়েশনে স্থানীয় সময় বিকেল সাড়ে ৫টায় মঞ্চস্থ হলো মুক্তবিহঙ্গ নাট্য সংগঠনের পঞ্চম প্রযোজনা কারলোগোলদনি’র কমেডি ‘দা সারভেন্ট অফ টু মাস্টার্স’ অবলম্বনে অসীম দাসের রচনায় নাটক ‘নওকর শয়তান মালিক হয়রান’। নাটকটির নির্দেশনায় ছিলেন জাহিদ হক।

আলবার্টা সরকারের বেঁধে দেয়া স্বাস্থ্যবিধি মেনে ক্যালগেরির প্রবাসী বাঙালিরা উপস্থিত হয়ে অনেক দিন পর এক ভিন্নধর্মী বিনোদনে মেতে উঠেছিল।করোনা মহামারী শুরু হওয়ার পর থেকে প্রবাসীরা প্রায় সবাই গূহবনদী থাকায় অনেকেই উচ্ছাস প্রকাশ করেছেন।

ক্যালগেরির আবু ইউসুফ জানালেন- খুব ভালো লাগছে। অনেকদিন পর কমিউনিটির সবাই কে দেখে।এ এক অন্য রকম অনুভুতি। করোনা মুক্ত হয়ে উঠুক বিশ্ব, এমনটাই আমাদের প্রত্যাশা।
 

মুক্তবিহঙ্গ এর সভাপতি জাহিদ হক বলেন, খুব ভালো লাগছে অনেকদিন পর মঞ্চ এ কাজ করে। সারা বিশ্ব করোনা মুক্ত হয়ে নতুন করে পূথিবী আবার জেগে উঠুক যাতে করে মঞ্চ এ নতুন নতুন কাজ করতে পারি। এ সময় উপস্থিত ছিলেন মৌ এবংতাশফিন হোসেন।


নাটকটির মিডিয়া পার্টনার চ্যানেল আই ও প্রবাস বাংলা ভয়েস।

নাটকটির বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন মৌ ইসলাম, জাহিদ হক, তাশফিন হোসেন, সাবরিনা মারিয়াম আদিবা, টিনা দাস, রেশাদ মাসরুর, মাজ হক শুভজিত পাল, মইনুল ইসলাম রকি, মিনার হাসান, খাইরুন্নেসা মিম, নাহিয়ান ওয়াজিদা মীম। লাইটে আদি। সেটে মোশারফ মাসুদ।

সহযোগিতায় ছিলেন আবু ইউসুফ, হাসনান সিদ্দিক সানভী,অভিজিত সাহা, মোঃ শাহ্ আলম,নিগার সুলতানা,আবনার ইউসুফ, শারমিন চৌধুরী, অবন্তী,নীল এবং আভ্র আলম।

উল্লেখ্য শুধু বিনোদনই নয়, বাংলাদেশের পথশিশুদের গত চার বছর ধরে নিয়মিত আর্থিক সহযোগিতা দিয়ে আসছে মুক্তবিহঙ্গ। এ প্রযোজনা থেকে যে অর্থ সংগৃহীত হচ্ছে তার সবই চলে যায় বাংলাদেশের মিরপুরে অবস্থিত মায়ের আঁচল পথশিশু আশ্রয় কেন্দ্রে। গত বছরগুলোতে তারা পথ শিশুদের কম্পিউটার প্রশিক্ষণ এবং সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডের জন্য প্রায় তিন লাখ টাকা সহায়তা করেছেন।

আরও পড়ুন


বঙ্গবন্ধু যেতেই গুলি বন্ধ করল বিডিআর

মানুষের সঙ্গে যেভাবে কথা বলতেন বিশ্বনবী

সূরা বাকারা: আয়াত ১২৮-১৩৩, আল্লাহর নির্দেশ ও হয়রত ইব্রাহিম (আ.)

কলকাতা প্রেস ক্লাবে ‘বঙ্গবন্ধু মিডিয়া সেন্টার’


 

ইতোমধ্যে সংগঠনটি তাদের কার্যক্রমের স্বীকৃতি স্বরূপ আলবার্টার প্রফেসনাল থিয়েটারের মর্যাদা লাভ করেছে কানাডার গভর্মেন্ট অফ আলবার্টা থেকে। আর এরই পরিপ্রেক্ষিতে ইতিমধ্যে সিটি অফ ক্যালগেরি দশ বছরের জন্য মুক্তবিহঙ্গ ‘বেঙ্গলি থিয়েটার’- নামটি ক্যালগেরির ডাউনটাউন এ অবস্থিত পাবলিক লাইব্রেরিতে খোদাই করে লেখা থাকবে।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

কানাডার ক্যালগেরিতে প্রতিবাদ সভা ও মানববন্ধন

লায়লা নুসরাত, কানাডা

কানাডার ক্যালগেরিতে প্রতিবাদ সভা ও মানববন্ধন

বাংলাদেশে বিভিন্ন জেলায় চলমান হিন্দু সম্প্রদায়ের উপর সংঘবদ্ধ বর্বরোচিত অত্যাচার, হত্যা, নির্যাতন, ভয়ভীতি প্রদর্শন, পূজা মন্ডপ ও প্রতিমা ভাংচুর, এবং নিগ্রহের প্রতিবাদে কানাডার ক্যালগেরিতে প্রবাসী বাঙালিরা প্রতিবাদ সভা ও মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছে।

কানাডার আলবার্টার স্বাস্থ্যবিধি ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে কঠোর কোভিড নিষেধাজ্ঞার মধ্যে মাস্ক পরে ক্যালগেরির ইসকন মন্দিরের সামনে শান্তিপূর্ণভাবে স্লোগান সম্বলিত প্ল্যাকার্ড নিয়ে প্রবাসীরা মানববন্ধন পালন করে।

সভায় প্রবাসী বাঙালিরা বাংলাদেশের বর্তমান পরিস্থিতি ও নির্যাতনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ স্বরূপ কালো কাপড়ের মাস্ক পরে এই প্রতিবাদে যোগ দেয়। সভায় বাংলাদেশের সংখ্যালঘু ও হিন্দু সম্প্রদায়ের উপর এই অত্যাচার বন্ধের জন্য যথাযথ ব্যবস্থা নিতে সরকার ও বিশ্বনেতৃবৃন্দের কাছে আহ্বান জানানো হয়। হিন্দুদের উপর চলমান সহিংসতা ও নির্যাতনের জন্য দুষ্কৃতকারিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তিসহ হিন্দুদের জানমালের আশু নিরাপত্তা বিধানেরও দাবী জানানো হয়।

মানববন্ধন ও প্রতিবাদ কর্মসূচীতে ক্যালগেরির বাংলাদেশি হিন্দু সম্প্রদায়ের নেৃতৃবৃন্দ ও অসাম্প্রদায়িক প্রবাসী বাঙালিরা উপস্থিত ছিলেন। এর মধ্যে ছিলেন কিরণ বণিক শংকর, রূপক দত্ত, সুব্রত বৈরাগী, জয়ন্ত সাহা, দেবাশীষ রায়, জুবায়ের সিদ্দিকী প্রমুখ। আয়োজকদের মধ্যে ছিলেন জয়দীপ সান্যাল, তন্ময় তালুকদার, শুভ্র দাস, নবাংশু শেখর, শান্তনু বণিক, প্রাণবেন্দ্র সেনগুপ্ত, প্রদ্যুত চক্রবর্তী, ববি পাল, পাপলু পাল, বিনিতা দত্ত সহ অর্ধশতাধিক প্রবাসী বাঙালী।

আরও পড়ুন:

মেয়াদ-বেতন দুটোই বাড়ছে টাইগার কোচ রাসেল ডমিঙ্গোর

চাকরির কথা বলে তরুণীকে হোটেলে নিয়ে পতিতাবৃত্তিতে বাধ্য করে নূর

নবীর ভবিষ্যদ্বাণী, বৃষ্টির মতো বিপদ নেমে আসবে

হঠাৎ পায়ের রগে টান পড়লে কী করবেন?


প্রতিবাদ সভায় বক্তারা বলেন- দুষ্কৃতিকারীদের কোন ধর্ম নেই। এরা মানবতা বিরোধী, দেশ ও দশের শত্রু। তাঁরা বলেন- এই প্রতিবাদ শুধুমাত্র বাংলাদেশের হিন্দুদের জন্য নয়, এই প্রতিবাদ প্রত্যেকটি প্রগতিশীল বাংলাদেশীদের জন্য। সারাবিশ্বে ছড়িয়ে পড়ুক এই প্রতিবাদ। আমরা এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই।
 
উল্লেখ্য, কানাডার অন্যান্য প্রদেশেও প্রতিবাদের ঝড় ও কর্মসূচি অব্যাহত রয়েছে।

news24bd.tv/ নকিব

পরবর্তী খবর

নিউইয়র্কে সম্মাননা পেলেন বাংলাদেশি শাহানা

অনলাইন ডেস্ক

নিউইয়র্কে সম্মাননা পেলেন বাংলাদেশি শাহানা

বিভিন্ন ক্ষেত্রে অভূতপূর্ব সাফল্যের জন্য প্রতিবছরের মতো এবারও ৪০ বছরের কম বয়সী ৪০ জন তরুণ-তরুণীকে সম্মাননা জানাল নিউইয়র্ক সিটি অ্যান্ড স্টেট। এই ৪০ জনের মধ্যে একমাত্র বাংলাদেশি হিসেবে জায়গা করে নিয়েছেন শাহানা হানিফ। তিনি এর আগে ১০০ প্রভাবশালী ব্যক্তির তালিকায়ও স্থান পেয়েছিলেন। 

গত ১১ অক্টোবর (সোমবার) এই ‘ফোরটি আন্ডার ফোরটি’ তালিকা প্রকাশিত হয়। 

আরও পড়ুন


বঙ্গবন্ধু যেতেই গুলি বন্ধ করল বিডিআর

মানুষের সঙ্গে যেভাবে কথা বলতেন বিশ্বনবী

সূরা বাকারা: আয়াত ১২৮-১৩৩, আল্লাহর নির্দেশ ও হয়রত ইব্রাহিম (আ.)

কলকাতা প্রেস ক্লাবে ‘বঙ্গবন্ধু মিডিয়া সেন্টার’


শাহানা হানিফ সম্পর্কে সিটি অ্যান্ড স্টেটের তালিকায় লেখা হয়েছে, বাংলাদেশি ইমিগ্র্যান্টের কন্যা শাহানা হানিফ একজন কমিউনিটি অর্গানাইজার। এ বছরের জুন মাসে নিউইয়র্ক সিটি কাউন্সিল ডিসট্রিক্ট ৩৯ থেকে ডেমোক্রেটিক প্রাইমারিতে নির্বাচিত হয়ে ইতিহাস তৈরি করেছেন তিনি। আসন্ন ২ নভেম্বর সিটি কাউন্সিল নির্বাচনে নির্বাচিত হলে তিনিই হবেন প্রথম মুসলিম নারী। তার ডিসট্রিক্টেও তিনি প্রথম নারী ও ‘পিপল অব কালার’ হিসেবে নির্বাচিত হবেন । 

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

কানাডায় ‘সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি: চ্যালেঞ্জ কোথায়?’ আলোচনা অনুষ্ঠিত

লায়লা নুসরাত, কানাডা

কানাডায় ‘সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি: চ্যালেঞ্জ কোথায়?’ আলোচনা অনুষ্ঠিত

কানাডার ক্যালগেরিতে আলবার্টার প্রথম বাংলা অনলাইন পোর্টাল ‘প্রবাস বাংলা ভয়েস’র আয়োজনে প্রধান সম্পাদক আহসান রাজীব বুলবুলের সঞ্চালনায় ‘সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি: চ্যালেঞ্জ কোথায়?’ শীর্ষক এক ভার্চুয়াল আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

উক্ত ভার্চুয়াল আলোচনায় প্রধান অতিথি হিসেবে অংশগ্রহণ করেন প্রবাসী সাংবাদিক ও কানাডার নতুনদেশ পত্রিকার প্রধান সম্পাদক শওগাত আলী সাগর। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, এবিএম কলেজের প্রতিষ্ঠাতা প্রেসিডেন্ট ড: মোহাম্মদ বাতেন। স্বাগত বক্তব্য রাখেন বিশিষ্ট কলামিস্ট, উন্নয়ন গবেষক ও সমাজতাত্ত্বিক বিশ্লেষক মো. মাহমুদ হাসান।

এছাড়াও অন্যান্যের মধ্যে আলোচনায় অংশ নেন প্রকৌশলী আবদুল্লাহ রফিক, প্রকৌশলী মোহাম্মদ কাদির, সিলেট এসোসিয়েশন অব কেলগেরীর সভাপতি রুপক দত্ত এবং বিশিষ্ট কমিউনিটি ব্যক্তিত্ব ও রিয়েল এস্টেট ব্যবসায়ী কিরন বনিক শংকর।

আলোচনায় বক্তারা বলেন, বঙ্গবন্ধুর কাঙ্খিত সোনার বাংলাদেশ বিনির্মানের পথে সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ উগ্র সাম্প্রদায়িকতাবাদ ও ধর্মান্ধতা। আর এটি মোকাবিলায় সকল প্রগতিশীল শক্তিকেই স্ব স্ব অবস্থান থেকে দায়িত্ব পালনে সচেষ্ট হতে হবে। কুমিল্লায় সংঘটিত অপ্রত্যাশিত ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করে বক্তারা বলেন, মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও বাঙালি জাতির হাজার বছরের আবহমান ঐতিহ্য, সংস্কৃতি ও সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি ধরে রাখতে আমাদের সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে।

প্রবাসী সাংবাদিক ও কানাডার নতুনদেশ পত্রিকার প্রধান সম্পাদক শওগাত আলী সাগর বলেন, কুমিল্লার ঘটনাকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন স্থানে ঘটে যাওয়া ঘটনাবলীকে কোনভাবেই বিচ্ছিন্নভাবে দেখার সুযোগ নেই। রাষ্ট্র ও সরকারকে আগে স্বীকার করে নিতে হবে, দেশে সাম্প্রদায়িকতা আছে, হিন্দু ফোবিয়া আছে। সমস্যাকে স্বীকার করেই সমাধানের পথ অনুসন্ধান করতে হবে। স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ কে স্বাধীনভাবেই সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির পথ বের করতে হবে। অপরাধ করলে শাস্তি অনিবার্য -এ ধারণা জনগনের মনে তৈরি করতে পারলে পুলিশ প্রহরায় উৎসব, পূজা-পার্বণ আয়োজনের প্রয়োজন নেই।

কলামিস্ট উন্নয়ন গবেষক ও সমাজতাত্ত্বিক বিশ্লেষক মোঃ মাহমুদ হাসান বলেন, ধর্মান্ধ শক্তিকে ব্যবহার করে উগ্রবাদকে উস্কে দিয়ে অরাজকতার মাধ্যমে ফায়দা হাসিলের অপচেষ্টাকে রুখতে, রাষ্ট্রকে ধর্মনিরপেক্ষতার পরিবেশ নিশ্চিত করে সাম্প্রদায়িকতা সৃষ্টির উর্বর পথকে রুদ্ধ করতে হবে। সংবিধানে সংখ্যাগুরুর অবস্থান কে সংহত করে সংখ্যালঘুর অধিকার কে নিশ্চিত করা যাবে না। ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে আমরা সবাই বাঙালি, বাংলাদেশ সবার দেশ এ ভাবনাটিকে সংহত করতে হলে কুমিল্লা সহ বিভিন্ন স্থানে ঘটে যাওয়া ন্যাক্কারজনক সাম্প্রদায়িক ঘটনার জন্য দায়ীদের বিরুদ্ধে দ্রুত দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করে জনমনে আস্থা ফিরিয়ে আনতে হবে।

বিশেষ অতিথি এবিএম কলেজের প্রতিষ্ঠাতা প্রেসিডেন্ট ডঃ মোহাম্মদ বাতেন বলেন- খুবই দুঃখজনক, ধিক্কার জানাই। বাংলাদেশ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ, কোনো ধর্মীয় সম্প্রদায়ের ওপর এ ধরনের হামলার তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি। এক শ্রেণীর অপশক্তি প্রতিনিয়তই এধরনের ঘটনা ঘটিয়ে পার পেয়ে যাচ্ছে। তাদের আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে যাতে করে ভবিষ্যতে এধরনের ঘটনা আর না ঘটে। কুরআন হাদিসের রেফারেন্স টেনে তিনি বলেন, সকল ধর্মের মানুষের মৌলিক অধিকার নিশ্চিত করতে না পারলে, ইসলামের মূলনীতি বিঘ্নিত হয়।

প্রকৌশলী আবদুল্লাহ রফিক বলেন- স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী পার হলেও ৭১ এর পরাজিত শক্তিরা এখনও সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করার চেষ্টায় লিপ্ত। সুখী, সমৃদ্ধ অর্থনীতির অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ বিনির্মাণে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধুর মতোই সুদৃঢ় লক্ষ্য ও প্রতিশ্রুতি নিয়ে কাজ করে যাচ্ছেন। তাতে কোনো অপশক্তি বাঁধা হয়ে দাঁড়াতে পারবে না। অপশক্তি রোধে প্রয়োজন শুধু সমন্বয়ের।

সিলেট এসোসিয়েশন অব কেলগেরীর সভাপতি রুপক দত্ত বলেন - আমরা বিস্মিত, হতবাক। এই কি সেই বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা? কোথায় আমরা? এই অপশক্তির উৎস কোথায়? তিনি আরো বলেন-চট্টগ্রাম, নোয়াখালী জেলার বেগমগঞ্জের চৌমুহনী ও হাতিয়ার বুড়িরচরসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের মন্দির, বাড়িঘর ও ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানে হামলা, ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ ও লুটপাটের ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। অপরাধী যেই হোক, বাংলার মাটিতে তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেখতে চাই।

আরও পড়ুন


ছড়াচ্ছিল দুর্গন্ধ, উৎস খুঁজতে গিয়ে মিলল চিকিৎসকের মরদেহ

৭ বছর পর হলে আসছে অনন্ত জলিলের ‘অ্যাকশন সিনেমা’

কিশোরী প্রেমিকাকে কাশবনে ডেকে নিয়ে পালাক্রমে ধর্ষণ করে দুই বন্ধু

মোস্তাফিজকে রুখে দেয়ার ইচ্ছে স্কটল্যান্ডের!


প্রকৌশলী মোহাম্মদ কাদির বলেন, এ লজ্জা আমাদের সবার। এখনই যদি কঠোরভাবে এই অপশক্তির দমন না করি, তাহলে ভবিষ্যতে এরা আরো বেশি করে মাথা চাড়া দিয়ে উঠবে। শুধু প্রশাসন নয়, সর্বস্তরের সবাই কে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়ে তিনি আরো বলেন- আসুন এখনই ওদের নির্মূলে সোচ্চার হই। জনসচেতনতা গড়ে তুলি।

বিশিষ্ট কমিউনিটি ব্যক্তিত্ব ও রিয়েল এস্টেট ব্যবসায়ী কিরন বনিক শংকর বলেন- বাংলাদেশের সনাতন ধর্মাবলম্বীরা যখন তাদের সর্বোচ্চ ধর্মীয় উৎসব দুর্গাপূজা উদযাপন করছে, তখন চিহ্নিত সাম্প্রদায়িক ও জঙ্গিগোষ্ঠী সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে গুজব ও মিথ্যা অপপ্রচার চালিয়ে দেশের বিভিন্ন জায়গায় পূজামণ্ডপ, মন্দির ও হিন্দু সম্প্রদায়ের বাড়িঘর ও ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানে যে হামলা চালিয়েছে তাঁর তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি।

বাংলাদেশ সম্প্রীতির দেশ, অসাম্প্রদায়িকতার দেশ- প্রবাসে থেকে আপনজনদের উপর এই হামলা কোনোভাবেই মেনে নিতে পারছি না। অত্যন্ত দুঃখ ভারাক্রান্ত মনে আবেগ আপ্লুত হ্রদয়ে সাবেক এই ছাত্রনেতা বলেন, আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে বারবার এমন ঘটনায় আমরা হতাশ ও দিকভ্রান্ত। তিনি বলেন, আর দাবি নয়, দেখতে চাই শেখ হাসিনার সরকার এমন ঘটনার পুনরাবৃত্তি রোধে সর্বোচ্চ কঠোরতা প্রদর্শন করেছে।

news24bd.tv এসএম

পরবর্তী খবর